মেইন ম্যেনু

সুনামগঞ্জ নেওয়া হচ্ছে সুরঞ্জিতের মরদেহ

সাবেক মন্ত্রী, বর্ষীয়ান রাজনীতিক ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মরদেহে সিলেটের সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে নিজ জেলা সুনামগঞ্জে নেওয়া হচ্ছে। সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সোমবার বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সর্বস্থরের মানুষ। এরপর ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারে করে সুনামগঞ্জের উদ্দেশে রওনা হয়।

এর আগে সকাল ৯টায় ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারযোগে সিলেটের উদ্দেশে মরদেহ নিয়ে আসা হয়। সকাল ১০টা ৩১ মিনিটে মরদেহ সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়। কঠোর নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে মরদেহ বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স ১০টা ৫৯ মিনিটে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আনা হয়।

মরদেহ আনার পর সকাল থেকে শহীদ মিনারে অপেক্ষারত নেতাকর্মীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। পরে শহীদ মিনারে কালোকাপড়ে মোড়া অস্থায়ী বেদীতে রাখা শবদেহে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ সর্বস্তরের মানুষ।

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ বলেন, ‘বর্ষীয়ান এ নেতার মরদেহ শহীদ মিনারে আনার পর নেতাকর্মীরা শোকাহত হয়ে পড়েন। সকাল থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী অপেক্ষায় ছিলেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে মরদেহ সুনামগঞ্জ ও তার নির্বাচনী এলাকা দিরাই-শাল্লায় নিয়ে যাওয়া হবে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য।’

এরপর সুনামগঞ্জে, দুপুর ১টায় শাল্লা উপজেলায় ও ৩টায় দিরাই উপজেলায় সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য মরদেহ রাখা হবে। পরে দিরাইয়েই তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে।

এদিকে শ্রদ্ধা নিবেদন উপলক্ষে নগরীর চৌহাট্টা সড়কে নেতাকর্মীদের উপচেপড়া ভিড়ের কারণে এ সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। পাশাপাশি শহীদ মিনার এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয় বলে জানিয়েছেন কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহেল আহমদ।

রোববার ভোর ৪টা ১০ মিনিটে রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। গত শনিবার রাত ৮টার দিকে তাকে হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) নেওয়া হয়। তার আগে শুক্রবার তাকে এ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই