মেইন ম্যেনু

সাতক্ষীরার কলারোয়ার কিছু খবর

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস পালিত

কলারোয়ায় নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো মহান বিজয় দিবস। মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, শহীদদের স্মৃতি বিজড়িত সৌধে বিন¤্র চিত্তে পুস্পমাল্য অর্পন, বর্ণাঢ্য ডিসপ্লে, ক্রীড়া অনুষ্ঠান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন। বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তালা-কলারোয়ার সংসদ সদস্য এড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনুপ কুমার তালুকদার, কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম, যুদ্ধকালীন কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দীন ও আব্দুল গফ্ফার। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন এবং উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, আবুল হোসেন, সৈয়দ আলী, উপজেলা চেয়ারম্যানের সহধর্মিনী প্রভাষক সুরাইয়া ইয়াসমিন রতœা, জেলা আ.লীগের সদস্য সাজেদুর রহমান খান চৌধুরী মজনু ও আরাফাত হোসেন, বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা ফারুকুজ্জামান, ওয়ার্কার্স পার্টির সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ, অধ্যাপক শেখ জাভিদ হাসান, জাসদ’র সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন, শওকত হোসেন, আব্দুল হাকিম, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক এমএ ফারুক, সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ ড. এম হাসান সরোওয়ার্দ্দী, উপাধ্যক্ষ অহিদুল আলম মন্টু, আমানুল্লাহ কলেজের অধ্যক্ষ মনিরা বেগম, বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ নজিবুল ইসলাম, পৌর প্যানেল মেয়র রফিকুল ইসলাম, পৌর কাউন্সিলর মাস্টার মনিরুজ্জামান বুলবুল, জাতীয় পার্টির সভাপতি মুনছুর আলী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহেল আলিম বাবু, আশরাফ আলী, পাবলিক ইনস্টিটিউটের সভাপতি অধ্যাপক আবুল খায়ের, সাধারণ সম্পাদক এড. শেখ কামাল রেজা, কলারোয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম রহমান, সাধারণ সম্পাদক প্রধান শিক্ষক রাশেদুল হাসান কামরুল, সহ সভাপতি অধ্যাপক কে,এম আনিছুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক প্রভাষক আরিফ মাহমুদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ জুলফিকারুজ্জামান জিল্লু, শিক্ষক সাংবাদিক দীপক শেঠ, কলারোয়া রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি আজাদুর রহমান খান চৌধুরী পলাশ, উপজেলা সাংবাদিক সংস্থার সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জুলফিকার আলী, ডা. আসাদ, আরিফ চৌধুরী, পৌর আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, বিএনপি নেতা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বজলুল করিম, অধ্যক্ষ রইছ উদ্দীন, অধ্যক্ষ আবু বকর সিদ্দীক, প্রভাষক শাহাদাৎ হোসেন, আখলাকুর রহমান শেলী, শওকত হোসেন, প্রভাষক আ: সালাম দিলু, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব প্রভাষক মনিরুজ্জামান, শিক্ষক নেতা আমানুল্লাহ আমান, হরিসাধন ঘোষ, আব্দুর রব, আবদুর রকীব, বদরুজ্জামান, প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন, আকতার আসাদুজ্জামান চান্দু, আজহারুল ইসলাম, শামছুল হক, আব্দুল আলিম, ইমদাদুল হক, সহকারী প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান, মাস্টার বদরুজ্জামান বিপ্লব, পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মনোরঞ্জন সাহা, ক্রীড়া সংগঠক আব্দুর রশিদ কচি, জাহিদুর রহমান খান চৌধুরী, আলহাজ্ব আব্দুর রহিম, মীর রফিকুল ইসলাম, রমজান আহম্মেদ, মাস্টার শেখ শাহাজাহান আলী শাহিন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের পক্ষে এড. আশরাফুল আলম বাবু, যুবলীগ যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী সাহাজাদা, যুবদল সাধারণ সম্পাদক এমএ হাকিম সবুজ, প্রভাষক সালাহ্ উদ্দীন পারভেজ, শ্রমিকলীগ নেতা মঞ্জুরুল ইসলাম মিঠু, আব্দুর রহিম, আসাদুজ্জামান তুহিন, আশিকুর রহমান মুন্না, শেখ হারুন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা হারুন-অর-রশিদ, রেজানুজ্জামান লিটু, সহিদুজ্জামান সাইদসহ উপজেলা প্রশাসনের সকল কর্মকর্তাবৃন্দ। কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লেতে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা দেশপ্রেমের ওপর নজর কাড়া ডিসপ্লে প্রদর্শন করে উপস্থিত সকলের দৃষ্টি কাড়েন। এছাড়া পৌরসভার বিভিন্ন স্কুল, মাদরাসাসহ বিভিন্ন রাজনেতিক দলের অংগ সংগঠন, সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তি পর্যায়ে অনেকেই শহীদদের প্রতি ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। সমগ্র অনুষ্ঠানটি যৌথ ভাবে পরিচালনা করেন যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা এসএম আজিজুল হক ও এড. শেখ কামাল রেজা। রাতে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বিজয় দিবস উপলক্ষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা:
News-photo-17--কলারোয়ায় মহান বিজয় দিবসে জাতির শেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন তালা-কলারোয়ার সংসদ সদস্য এড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহ। উপজেলা পরিষদ চত্বরে ইউএনও অনুপ কুমার তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন, কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম, যুদ্ধকালীন কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দীন ও আব্দুল গফ্ফার। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন এবং উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, আবুল হোসেন, সৈয়দ আলী, জেলা আ.লীগের সদস্য সাজেদুর রহমান খান চৌধুরী মজনু ও আরাফাত হোসেন, ওয়ার্কার্স পার্টির সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ, জাসদ’র সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন, শওকত হোসেন, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক এমএ ফারুক, এড. শেখ কামাল রেজা, এড. আশরাফুল আলম বাবু, মনোরঞ্জন সাহা প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে উপস্থিত বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন প্রধান অতিথিসহ বিশেষ অতিথিবৃন্দ। অনুষ্ঠানে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদদের পরিবারের সদস্যদের হাতে উপহার সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল হামিদ, সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেন, উপজেলা প্রকৌশলী আবেদুর রহমান, নির্বাচন কর্মকর্তা ফারাজী বেনজির আহমেদ, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা এসএম আজিজুল হক, উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী কুদ-রত-ই খুদা, ভিডিপি কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান, ডা. তওহীদুর রহমান, ডা. মেহেরুল্লাহ, ইউপি চেয়ারম্যান স,ম মোরশেদ আলী, কলারোয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক প্রধান শিক্ষক রাশেদুল হাসান কামরুল, যুগ্ম সম্পাদক প্রভাষক আরিফ মাহমুদ, শিক্ষক সাংবাদিক দীপক শেঠ, প্রভাষক মনিরুজ্জামান, প্রভাষক বিএম সিরাজ, প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন, শামছুল হক, সহকারী প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান আসাদ, মাস্টার বদরুজ্জামান বিপ্লব, কাজী সাহাজাদা, আশিকুর রহমান মুন্না, রবিউল হাসান, সন্তোষ পাল, মারুফ মেম্বার, সাংবাদিক জুলফিকার আলী, এমএ সাজেদ, ডা. আসাদসহ বিপুল সংখ্যক মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য এবং সুধিজন। আলোচনা শেষে অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে মুগ্ধ করে কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিমের নিজ উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উপহার হিসেবে দেওয়া ৩টি বড় আকৃতির কাঠের চেয়ার। এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত অনেকে মন্তব্য করেন দেশ মাতৃকার মুক্তির জন্য যারা জীবন বাজি রেখে সেদিন যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন ওই চেয়ারে শুধু তাঁদেরই মানায়। আর তাঁদের জন্য উপযুক্ত এবং প্রাপ্য পাওনাটিই যেন বুঝিয়ে দিলেন কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম। সমগ্র অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা শেখ ফারুক হোসেন। এদিকে, একই অনুষ্ঠানে এসএসসি পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের জন্য সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিবেচিত হওয়ায় সেকায়েপ প্রকল্প’র আওতায় উপজেলার ৩টি প্রতিষ্ঠানকে পৃথক ভাবে ১ লক্ষ টাকার চেক ও সনদ পত্র প্রদান করেন প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ৩টি হলো-কলারোয়া গার্লস পাইলট হাইস্কুল, কাজীরহাট গার্লস হাইস্কুল ও কাকডাঙ্গা সিনিয়র মাদরাসা।

কারারুদ্ধ ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলামের পিতার ইন্তেকাল:
কলারোয়া উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ম সম্পাদক, ১২ নং যুগিখালি ইউপি’র কারারুদ্ধ চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবির পিতা আব্দুর রাজ্জাক মোড়ল (৭৫) আর নেই। বুধবার সন্ধ্যায় নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না—-রাজিউন)। মরহুমের পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয় তিনি দীর্ঘদিন ধরে দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শে চিকিৎসা সেবা নিচ্ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ ছেলে, ৩ মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। এদিকে, পরিবারের পক্ষ থেকে কারারুদ্ধ পুত্র ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবির প্যারলে মুক্তির বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে বলে জানা গেছে। সেজন্য কখন মরহুমের জানাযা নামাজ অনুষ্ঠিত হবে সেটা সঠিক ভাবে জানাতে পারেননি পরিবারের সদস্যরা।

বেত্রবতী হাইস্কুলে মেনটরিং প্রশিক্ষণের উদ্বোধন:
News Pic-Brac-কলারোয়া বেত্রবতী আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ব্র্যাক, পেইস’র আওতায় ৫ দিন ব্যাপী মেনটরিং প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০ টায় বিদ্যালয়ের হলরুমে প্রধান শিক্ষক ও কলারোয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল হাসান কামরুল ওই প্রশিক্ষণের উদ্বোধন ঘোষণা করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মশিউর রহমান, আনারুল ইসলাম, তজিবুর রহমান, সাইফুল আলম প্রমুখ। ৫ দিন ব্যাপী এ অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত থেকে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেবেন কলারোয়া মডেল হাইস্কুলের সিনিয়র শিক্ষক মোস্তফা বাকী বিল্লাহ শাহী। তাকে সহযোগিতা করবেন ব্র্যাক, পেইস’র প্রতিনিধি ফরিদা পারভীন। ৫দিন ব্যাপী এ প্রশিক্ষণে বিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন সহকারী শিক্ষকসহ ৩৫ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশ গ্রহণ করেছে।

News-photo--17মুরারিকাটিতে নকআউট ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত:
কলারোয়ায় মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে মুরারিকাটি একতা সংঘের উদ্যোগে ৮দলিয় নকআউট ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার মুরারিকাটি গ্রামের শেখ পাড়ার মাঠে অনুষ্ঠিত খেলায় উপস্থিত ছিলেন ব্যবসায়ী শামিম, মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, ইসাহাক বিশ্বাস, মো. খোকন, মো. ফিরোজ প্রমুখ। খেলাটির সাবিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন সৈয়দ খালিদ, মো. আকতার, মামুন হোসেন, সাংবাদিক আরিফ চৌধুরী। খেলা শেষে বিজয়দলের মধ্যে ট্রপি, ক্রেস্ট ও মেডেল প্রদান করা হয়।
কলারোয়ায় আট লাখ গৃহপালিত পশু পালন হচ্ছে:
কলারোয়া উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে এবার ৫৯হাজার ৬৪ টি গরু, ৫১হাজার ৭শ’৮৭ টি ছাগল, ১শ’৪৩ টি ভেড়া, ৯৩ হাজার ৭শ’৫০ টি হাঁস ও ৫লাখ ৫৯হাজার ১শ’ ৩১টি মুরগী পালিত হচ্ছে। বুধবার সকালে কলারোয়া উপজেলার প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. আব্দুর রহিম জানান, উপজেলায় রেজি.কৃত ডেইরী খামার ২শ’২৬ টিতে শংকর জাতের ৫৯ হাজার’ ৬৪ টি গরু পালন করা হচ্ছে। এছাড়া রেজি.কৃত ১শ’২২ টি মুরগী খামারসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে দেশী ও বিদেশী জাতের  ৫লাখ ৫৯ হাজার ১শ’ ৩১টি মুরগী পালন করা হচ্ছে। ৯৩ হাজার ৭শ’ ৮৭টি দেশী ও বিদেশী জাতের হাঁস পালন করা হচ্ছে। উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ছাগল পালনকারী পরিবারের সংখ্যা হচ্ছে ৫১ হাজার’ ৭শ’ ৮৭ জন হলেও সেখানে ভেড়া পালন করছে মাত্র ১শ’৪৩ জন পরিবার।

কলারোয়ায় কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পুরাতন ল্যাপটপ বিতরণের অভিযোগ:
কলারোয়ায় ১০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩টি মাদ্ররাসায় বাংলালিংক কোম্পানীর সৌজন্যে ২টি করে ল্যাপটপ ও ১টি করে প্রোজেক্টর  প্রদান করা হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই কোম্পানীর একজন প্রকৌশলী কলারোয়া বেত্রাবতী আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে  এসে কোম্পানীর তরফ থেকে ১টি নতুন ও ১টি পুরাতন ল্যাপটপ এবং সেই সাথে ১টি প্রোজেক্টর দেন। একই ভাবে তাদের আরও দুটি দল কলারোয়ার অন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এই জিনিষগুলো সরবরাহ করেন। এসকল জিনিষ গুলো প্রদানের সময় কলারোয়াতে বিদ্যুত না থাকায় সেগুলো চালু না দেখিয়েই তারা দ্রুত চলে যান। একজন কর্মকর্তার নিকটে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তেমন কিছু জানেন না বলে জানান। খোজ নিয়ে আরো জানা গেছে, কোন কোন প্রতিষ্ঠানে দেয়া ২টি ল্যাপটপের ১টি একেবারেই চালানোর অনুপযোগী। যাতে রয়েছে  মাত্র ৪০জিবি’র হার্ডডিস্ক ও ৫১২ রমের পুরাতন বাদ পড়া ল্যাপটপ। যেগুলোর কয়েকটা সচল করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন সেই সব প্রতিষ্ঠানের কম্পিউটার শিক্ষকমন্ডলী। তাদের পক্ষ থেকে ল্যাপটপ ও প্রোজেক্টর পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে কলারোয়া পাইলট হাইস্কুল, গার্লস পাইলট হাস্কুল, মডেল হাইস্কুল, বেত্রবতী আদর্শ হাইস্কুল, দমদম হাইস্কুল, কাজীরহাট হাইস্কুল, কাজীরহাট গার্লস হাইস্কুল, কে,কে,ই,পি হাইস্কুল, বিবিআরএনএস হাইস্কুল, আলিয়া মাদরাসা, মহিলা আলিয়া মাদরাসা, মুরারীকাটি দাখিল মাদরাসা উল্লেখযোগ্য। এবিষয়ে বাংলালিংক কোম্পানীর একজন কর্মকর্তার কাছে ফোন করে সেবা প্রদানের কথা জানতে চাইলে তিনি রহস্যময় কথা বার্তা বলে মোবাইল ফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। তিনি বলেন, আমাদের দেয়ার কথা দিয়ে এসেছি এখন যদি না চলে আমাদের কিছুই করার নেই। এখন প্রশ্ন হচ্ছে যদি সত্যিকার অর্থে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে দ্রুতগতিতে নেটওয়ার্কিং ব্যবস্থার মধ্যে আনায় ওই কোম্পানী সহায়তার হাত বাড়ায় তাহলে পুরানো বা অচল ল্যাপটপ সরবরাহ করলো কেন? বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জরুরী ভাবে দেখার দাবি জানিয়েছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ ও এলাকার সুধি সমাজ।






মন্তব্য চালু নেই