মেইন ম্যেনু

সংষ্কারের দাবি

খানা-খন্দকে পরিণত কলারোয়ার বিভিন্ন এলাকার পাকা সড়কগুলো

ভগ্ন ও বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে কলারোয়ার বিভিন্ন এলাকার পাকা সড়কগুলো। ভেঙ্গেচুড়ে খানা-খন্দকে অনুপযোগী হয়ে উঠেছে চলাচলের। দীর্ঘদিন দেখভাল না করা কিংবা যতসামান্য আংশিক সংস্কার করায় চলতি বর্ষায় উপজেলার বিভিন্ন সড়কের বহু স্থান পরিণত হয়েছে মরণফাঁদ। জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কগুলো পূর্ণাঙ্গ সংস্কার করা না হলে চলতি মৌসুমেই বিনষ্ট হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীরা। সরেজমিনে দেখা গেছে, কলারোয়া বাজার এলাকাসহ পৌরসভাধীন বহু পাকা সড়ক, কলারোয়া টু চান্দুড়িয়া ভায়া সোনাবাড়িয়া, কলারোয়া টু কেঁড়াগাছি ভায়া লাঙ্গলঝাড়া, বালিয়াডাঙ্গা, কলারোয়া টু সরসকাটি, কলারোয়া টু খোরদে ভায়া রায়টা, কাজিরহাট টু দেয়াড়া ভায়া শাকদাহ, কাজিরহাট টু গয়ড়া ভায়া সিংগা, সোনাবাড়িয়া টু কোটার মোড় ভায়া বারিকের মোড়, কলারোয়া টু ধানদিয়া চৌরাস্তা সড়ক সহ বিভিন্ন এলাকার সড়ক গুলোর অনেক স্থান ভেঙ্গেচুড়ে রীতিমত মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। অনেকস্থানে পায়ে হেটেও চলাচল করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে এ সড়কগুলো অবিলম্বে সংস্কার অত্যন্ত জরুরী। উপজেলা এলজিইডি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় এলজিইডি’র আওতায় পাকা সড়ক রয়েছে ৭৩৮ কিলোমিটার। এরমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত পাকা সড়কের সংস্কার কাজ নিয়মিত বিরতিতে করা হয়ে থাকে। ইতোমধ্যে সোনাবাড়িয়া-হুলহুলিয়া, কাজীরহাট-চিতলা, সোনাবাড়িয়া-মাদরা-ভাদিয়ালিসহ গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি সড়কের পূর্ণ সংস্কার করা হয়েছে। সূত্রমতে, ১৭.৮২ কি.মি দীর্ঘ কাজীরহাট-খোরদো-কাশিয়াডাঙ্গা সড়কটির ৫০ ভাগ, ৬.৪ কি.মি দীর্ঘ কাজীরহাট-সোনাবাড়িয়া সড়কের ৪কি.মি, ১০.৩২ কি.মি দীর্ঘ বাগুড়ি-গয়ড়া সড়কের ন’কাটি বিলসংলগ্ন ৩ কি.মি, ১০.২ কিমি., কলারোয়া-রায়টা-খোরদো সড়কের ২ কি.মি, ১৮ কি.মি দীর্ঘ কলারোয়া-চান্দুড়িয়া সড়কের ৮ক.মি, ৯.৮ কি.মি দীর্ঘ সোনাবাড়িয়া-কেড়াগাছি সড়কের ১.৫ কি.মি ও ৯.৫ কি.মি দীর্ঘ কলারোয়া-গাড়াখালি সড়কের ৬.৫ কি.মি. সংস্কার করা জরুরী হয়ে পড়েছে। এই মুহূর্তে জনগুরুত্বপূর্ণ কলারোয়া-চান্দুড়িয়া, কলারোয়া-লাঙ্গলঝাড়া-বালিয়াডাঙ্গা ও কলারোয়া-সরসকাটি সড়ক সংস্কার করা জনদাবিতে পরিণত হয়েছে। অত্যন্ত ব্যস্ত এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক যানবাহন চলাচল করে থাকে। কলারোয়া-চান্দুড়িয়া সড়কের ঝাঁপাঘাট বাঁশতলা মোড় থেকে গাবতলা মোড় হয়ে সোনাবাড়িয়া বারিকের মোড় পর্যন্ত, শ্রীরামপুর-বিক্রমপুরের জোড়াপুল সংলগ্ন রাস্তা ও বয়ারডাঙ্গা থেকে গয়ড়া ভাটার মোড় পর্যন্ত সড়কটি খানা-খন্দে ভরে গেছে। অনুরূপ অবস্থা কলারোয়া-বালিয়াডাঙ্গা সড়কের সাড়ে ৬ কি.মি. জুড়ে। কলারোয়া কোল্ডস্টোরেজ মোড় থেকে মাহমুদপুর, লাঙ্গলঝাড়া, গোয়ালচাতর, হঠাৎগঞ্জ হয়ে বালিয়াডাঙ্গা বাজার পর্যন্ত সড়কে রয়েছে অসংখ্য ভাঙন ও গর্ত। কলারোয়া-সরসকাটি সড়কের বিভিন্ন স্থান ভেঙে গেছে। ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে সাধারণের চলাচলের। আর খারাপ রাস্তার কারণে ছোট-বড় দূর্ঘটনা প্রায় হচ্ছে বলে স্থানীয়রা জানান। এছাড়াও গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ পাকা সড়কগুলোর বেহাল দশা কাটাতে সেগুলোও সংস্কার করা প্রয়োজন বলে মনে করেন স্থানীয় লোকজন। উপজেলা উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল কুদ্দুস জানান, কলারোয়া-বালিয়াডাঙ্গা ও কলারোয়া-চান্দুড়িয়া সড়ক দু’টি সংস্কারের বিষয়টি বিবেচনাধীন রয়েছে। মেইনটেইনেন্স মিটিংয়ে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়ে থাকে। তিনি আরও জানান, কলারোয়া-সরসকাটি সড়কটি সড়ক বিভাগের আওতাধীন। জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কগুলো অবিলম্বে সংস্কারের প্রত্যাশা সকলের।






মন্তব্য চালু নেই