মেইন ম্যেনু

চীনের রাস্তায় ডায়নোসর

পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি ডায়নোসরের ফসিল পাওয়া গেছে চীনে। গোটা চীনের বেশকিছু অঞ্চলকে ডায়নোসরের প্রাচীন আবাসভূমি বলেও ঘোষণা দেয়া হয়েছে বিগত বছরগুলোতে। কিন্তু সবেচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের গুয়াংদং প্রদেশের হুনান শহর। ২০০৪ সালে এই শহরটিকে ‘ডায়নোসরের বাসস্থান’ বলে ঘোষণা করা হয়ে এবং গিনেস বুকে বিশেষ শহর হিসেবে হুনানকে তালিকাভূক্ত করা হয়। সর্বশেষ ২০০৫ সালে এই শহরের এক প্রান্তে একটি ডায়নোসরের ফসিল পাওয়ার পর দীর্ঘদিন আর কিছু পাওয়া যায়নি।

সম্প্রতি হুনান শহরের মূল সড়কে কাজ করছিলেন সংস্কারকর্মীরা। সংস্কারের এক সময় রাস্তার নিচে চাপা পড়া অবস্থায় ডায়নোসরের ৪৩টি ডিম উদ্ধার করেছে কর্মীরা। ফসিল হয়ে যাওয়া ডিমগুলো বর্তমানে চীনের ডায়নোসর জাদুঘরে সংরক্ষিত আছে। শহরের সিটি সেন্টারের পার্শ্ববর্তী রাস্তা খুড়ে এই ডিমগুলো পাওয়া গেছে বলে জানা যায়।

প্রাপ্ত ডিমগুলোর মধ্যে ১৯টি ডিম পুরোপুরি অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা গেছে। এক একটি ডিমের আয়তন প্রায় পাঁচ ইঞ্চি। বিজ্ঞানীরা বর্তমানে ডিমগুলো পরীক্ষা করে দেখছেন এই ডায়নোসরদের জাত বের করার জন্য। কারণ চীনের এই অঞ্চলে কারনিভোরাস জাতের ডায়নোসর ছিল বলে জানা গেলেও এর কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। যদি এই ডিমগুলো পরীক্ষা করে কারনিভোরাস জাতের ডায়নোসরের উপস্থিতির সত্যতা প্রমাণ হয় তাহলে বিজ্ঞানীদের ডায়নোসরের ইতিবৃত্ত নিয়ে পুনরায় ভাবতে হবে বলে মনে করেন অনেক বিজ্ঞানী।

১৯৯৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত হুনান শহর থেকে মোট ১৭ হাজার ডায়নোসরের ডিম উদ্ধার করা গেছে। ১৯৯৬ সালে শহরের একটি নির্মানাধীন ভবন ধ্বংসস্তুপ থেকে ক্রীড়ারত অবস্থায় শিশুরা প্রথম ডায়নোসরের ডিম উদ্ধার করে। এরপর একে একে অনেক ফসিল ডিম উদ্ধার করা সম্ভব হয়। ধারণা করা হচ্ছে সর্বশেষ প্রাপ্ত ডায়নোসরের ডিমগুলো প্রায় ৮৯ মিলিয়ন বছরের পুরনো।






মন্তব্য চালু নেই