মেইন ম্যেনু

গৃহকর্মীকে খাবার না দেয়ায় দম্পতির কারাদণ্ড

দীর্ঘদিন ধরে গৃহকর্মীকে অনাহারে রাখার দায়ে সিঙ্গাপুরে এক দম্পতিকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আদালতের এ রায়ে বলা হয়েছে এ ধরনের অপরাধ গোটা রাষ্ট্রকে মর্মাহত করেছে। পাশাপাশি গৃহকর্তাকে অর্থ দণ্ড দেয়া হয়েছে।

রায়ের বিবরণীতে বলা হয়েছে, ফিলিপাইন থেকে আসা ওই গৃহকর্মীকে দিনে সামান্য খাবার দিয়ে তাকে প্রায় মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হয়েছিল। প্রায় ১৫ মাস ধরে এ অবস্থা চলতে থাকায় ওই নারীর মারাত্মক স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটে। এতে তার ওজন ৪৯ কেজি থেকে কমে ২৯ কেজিতে দাঁড়ায়। ২৪ ঘণ্টায় তাকে শুধু দুইবেলা সামান্য রুটি দেয়া হতো। আর কদাচিৎ জুটত নুডুলস।

এ ঘটনায় স্বামী লিম চুন হংকে তিন সপ্তাহ কারাদণ্ড ও ১০ হাজার সিঙ্গাপুরি ডলার জরিমানা করা হয়। আর স্ত্রীকে তিনমাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। উল্লেখ্য দেশটিতে গৃহস্থালির কাজে প্রায়ই পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে গৃহকর্মী আনা হয়। গৃহকর্মীদের ওপর এ ধরনের অমানবিক নির্যাতনের এর আগেও অনেক ঘটেছে। কিন্তু তার খুব কমই বিচারের মুখোমুখি হয়েছে। ফিলিপাইনের যে নারীটি এ ঘটনার শিকার হয়েছেন তার নাম থেলমা ওইসান গাইদান।

তিনি জানান, এতদিন তিনি বিষয়টি কাউকে জানাতে পারেননি। কারণ নিয়োগকর্তার কাছে তার পাসপোর্ট ও মোবাইল আটকা ছিল। অবশেষে ২০১৪ সালের এপ্রিলে তিনি দেশে ফিরে আসেন। এরপর তিনি অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য কাজ করা এইড গ্রুপের কাছে বিষয়টি জানান। এতে ওই দম্পতি দোষী সাব্যস্ত হলে তাদেরকে ওই সাজা প্রদান করা হয়। তবে বিষয়টি নিয়ে সিঙ্গাপুরের অনেকেই তাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

তারা বলেছেন, অমানবিকভাবে ওই গৃহকর্মীকে দিনের পর দিন না খাইয়ে রাখা হয়েছে সে তুলনায় শাস্তির মাত্রা খুবই কম হয়েছে। এটা সত্যিই আমাদের বিবেককে নাড়া দেয়।






মন্তব্য চালু নেই