মেইন ম্যেনু

গুলির খোসা মিলছে ২ কিলোমিটার দূরেও!

সিলেটের শিববাড়ি পাঠানপাড়ার আতিয়া মহল এলাকাতে প্রচণ্ড বিস্ফোরণের আওয়াজ শোনা যাচ্ছে আজও। রাত আড়াইটা থেকে ভোর পৌণে ৫ টা পর্যন্ত থেমে থেমে শোনা গেছে উচ্চমাত্রার বিস্ফোরণের আওয়াজ। স্থানীয় একাধিক বাসিন্দা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ২ কিলোমিটার দূরেও মিলছে গুলির খোসা।

এদিকে আতিয়া মহলের আশপাশ ছাড়িয়ে প্রায় দেড় দুই কিলোমিটার দূরের এক বাড়িতে গুলির খোসা পাওয়া গেছে। তবে সেটি ‘অপরারেশন টোয়াইলাইট’ চলমান সময়কালে ছোড়া কিনা সেটি নিশ্চিত হওয়া যায়নি তাৎক্ষণিক।

শিববাড়ি থেকে প্রায় ২ কিলোমিটার দূরে নজরুল ইসলাম নামের বাসিন্দা জানিয়েছেন, তার বাসাতে রাত সোয়া ৪ টার দিকে ওড়ে গিয়ে পড়েছে গুলির খোসা। একারণে দূরে থেকেও তারা নিরাপত্তা বোধ করছেন না। উদ্বেগ- উৎকণ্ঠায় দিন কাটছে তাদের।

গোটাটিকরের মঈন উদ্দিনও জানিয়েছেন, আতিয়া মহল থেকে বেশদূরে তাদের বাসা। কিন্তু প্রচণ্ড বিস্ফোরণের আওয়াজ তিনিও শুনতে পারছেন।

তবে এর আগে রবিবার অভিযানিক দলের পক্ষে থেকে মাইকিং করে আশেপাশের বাসিন্দাদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যার বিস্ফোরণে ৪ জনের মৃত্যুর পর নিরাপত্তার ব্যাপারে আরও ‘হার্ডলাইনে’ চলে যায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী। রাত থেকেই আরোপ করা হয় কড়াকড়ি; নগরীর উত্তর সুরমাতেও দোকানপাট গুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। নেমে আসে নিস্তব্ধতা।

ভূতুড়ে হয়ে ওঠে গোটা সিলেট। দক্ষিণ সুরমাতে তো গত শুক্রবার সকাল থেকেই টানটান পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

শনিবার রাতে কড়াকড়ি আরোপের আগে মহানগর পুলিশের কমিশনার মো. গোলাম কিবরিয়া বলেন, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত দক্ষিণ সুরমার হুমায়ূন রশীদ চত্বর, সিলেট-ফেঞ্চুগঞ্জ সড়ক, পারাইরচক থেকে পীর হবিবুর রহমান চত্বর পর্যন্ত সব ধরনের সভা-সমাবেশ ও দলবদ্ধভাবে চলাফেরা করতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই