মেইন ম্যেনু

‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শৈথিল্য বরদাস্ত হবে না’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমেদ বলেছেন, তিন সিটির নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ হয়ে দায়িত্ব পালন করবেন।

তিনি বলেন, তাদের কোনোরকম শৈথিল্য নির্বাচন কমিশন বরদাস্ত করবে না।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে সোমবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে তিন সিটি নির্বাচনে সার্বিক প্রস্তুতি ব্যাখ্যা করে এর সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরও নিরপেক্ষতা বজায় রাখার নির্দেশ দেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

তিনি বলেন, ‘সকল ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা এবং নির্বাচন পরিচালনায় সংশ্লিষ্ট সকলকে নিরপেক্ষতা বজায় রেখে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিচ্ছি। এর ব্যত্যয় হলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

‘ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ ও চট্টগ্রামের ভোটারদের আশ্বস্ত করতে চাই যে, আপনারা নিরাপদে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিয়ে নির্বিঘ্নে বাসায় ফেরত যাবেন,’ যোগ করেন তিনি।

নির্বাচনে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক সংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান ইসি কমিশনার।

তিনি বলেন, নির্বাচনে ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৮০ হাজার সদস্য মোতায়েন করা হবে। এর মধ্যে থাকবে ১০০ প্লাটুন বিজিবি সদস্য।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ভোটের দিন কেন্দ্রের ভেতরে সশস্ত্র অবস্থায় ১০ জনসহ ২২ জন সার্বক্ষণিক অবস্থান করবে। এ ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে ১২ জন সশস্ত্র সদস্যসহ ২২ জন দায়িত্ব পালন করবেন।

‘এ ছাড়া ভোটকেন্দ্রের বাইরে প্রতিটি ওয়ার্ডে পুলিশ ও র‌্যাবের ২টি করে মোবাইল টিম সার্বক্ষণিক টহল দেবে। পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েনের পরও জনগণের স্বস্তির জন্য সেনাবাহিনী মোতায়েনের সিদ্ধান্তও নিয়েছে ইসি। তারা ঢাকার তিনটি ও চট্টগ্রামের দু’টি জায়গায় অবস্থান করবে,’ যোগ করেন তিনি।

এ ছাড়া থাকবে ১৬ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

তিনি বলেন, এর পাশাপাশি শতাধিক বিদেশী পর্যবেক্ষক থাকবেন।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে এবার মোট ৬০ লাখ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে ইসির তথ্যে জানা গেছে।






মন্তব্য চালু নেই