মেইন ম্যেনু

স্মৃতি-প্রিয়াঙ্কা বাগ্‌যুদ্ধ!

মোদি মন্ত্রিসভার সদস্য স্মৃতি ইরানি ও সোনিয়া গান্ধী-তনয়া প্রিয়াঙ্কার পাল্টাপাল্টি বাগ্‌যুদ্ধ নিয়ে সরব এখন ভারতীয় মিডিয়া। যদিও বাগ্‌যুদ্ধের উপলক্ষ আমেথির ট্রিপল আইআইটি। কিন্তু কারণটা যে রাজনৈতিক, তাতে সন্দেহ নেই।

এমনিতেই আমেথির ফুড পার্কের কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়া নিয়ে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে বদলার রাজনীতির অভিযোগ করেছেন রাহুল গান্ধী। এবার সোনিয়া গান্ধীর লোকসভা কেন্দ্র রায়বেরেলি সফরে গিয়ে আমেথির ট্রিপল আইআইটির হাল নিয়ে স্মৃতি ইরানিকে কটাক্ষ করেন প্রিয়াঙ্কা।

স্মৃতি ইরানি আগের দিন প্রশ্ন তোলেন, ইউপিএ শাসনে সোনিয়া গান্ধীর সংসদীয় কেন্দ্র রায়বেরেলিতে আইআইটি তৈরির প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও কেন তা আজও হয়নি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কটাক্ষ করেছিলেন, ‘এতগুলো বছর ধরে নেহরু-গান্ধী পরিবার এই কেন্দ্রের বাসিন্দাদের স্রেফ “ফাঁপা” প্রতিশ্রুতিই দিয়ে এসেছে।’

লোকসভা নির্বাচনে আমেথিতে রাহুল গান্ধীর কাছে পরাজিত হওয়ার পরও স্মৃতির হাতে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের গুরুদায়িত্ব তুলে দেন মোদি। এই প্রেক্ষাপটেই আমেথি সফরে গিয়ে গান্ধী পরিবারকে একহাত নেন স্মৃতি।

বুধবার অর্থাৎ পরদিনই জবাব দিতে গিয়ে সোনিয়া-তনয়া বলেন, ‘স্মৃতি ইরানি তো কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী। আগে তিনি বলুন, কেন এখানে আজও আইআইটি হলো না। এখানকার যুবকরা গভীর সমস্যায় পড়ছেন। কেন তিনি এদিকে নজর দিচ্ছেন না?’

এ সময় ভাইয়ের কাছে পরাজিত মন্ত্রীকে পরামর্শ দেন প্রিয়াঙ্কা, ‘নিজের কাজে মন দিন।’

প্রিয়াঙ্কার এই কটাক্ষেরও পাল্টা জবাব দেন স্মৃতি। তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় শ্রীমতী ভদ্র হোমওয়ার্ক করেননি। আমেথিতে ট্রিপল আইআইটির এলাহাবাদের একটি সরকারি ক্যাম্পাস আছে। ৬০ বছর যে গান্ধী পরিবার তাদের দুর্গে রাজ করল, তারা বাস্তবে কিছুই করেনি, এটাই অবাক করার ব্যাপার। এই প্রথম দেখা যাচ্ছে, যিনি ভোটে জিতেছেন, তিনিই এতগুলো বছর শাসন করার পরও বিজিতকেই উন্নয়নের কাজ করতে বলছেন!’






মন্তব্য চালু নেই