মেইন ম্যেনু

শাহরুখ-সাকিবের কলকাতার আইপিএল শিরোপা জয়

সপ্তম আসরের ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপএল) চ্যাম্পিয়ন হয়েছে সাকিবের কলকাতা নাইট রাইডার্স। জমজমাট ফাইনলে টানটান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে তিন বল বাকি থাকতেই তিন উইকেটে জয় পেয়েছে বাদশার দল। বীর’ শাহরুখ খান গ্যালারীতে বসে থাকলেও মাঠে তার দল কলকাতা নাইট রাইডার্স দূর্দান্ত পারফরমেন্স দেখিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলো। টানা ম্যাচ জুড়েই ছিল টানটান উত্তেজন। ফাইনাল ম্যাচটি যেন ফাইনালের মতোই হলো।

রবিবার ব্যাঙ্গালোরের এম চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে আইপিএলের ফাইনালে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ১৯৯ রানের চ্যালেঞ্জে ২০০রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৯.৩ ওভারেই জয়ের বন্দরে পৌছে যায় কলকাতা নাইট রাইডার্স। ৭ উইকেট হারিয়ে জয় নিশ্চিত করে কেকেআর। দলের পক্ষে ৫০বলে ৯৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে মনিষ পান্ডে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২২বলে ৩৬রান আসে ইউসুফ পাঠানের ব্যাট থেকে।

বিশাল রানের লক্ষ্য নিয়ে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই সাজঘরে ফেরেন আইপিএলের সেরা ঝড়ো ব্যটসম্যান উথাপ্পা। ব্যক্তিগত ৫ রান করে জনসনের বলে ক্যাচ আউট হন তিনি। এ দিন অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর ব্যক্তিগত ২৩ রান করে করনভির বলে মিলারের হাতে ক্যাচ দেন। কলকাতা দলীয় ৫৯ রানে দুই উইকেট হারালে মনিশ পাণ্ডের সঙ্গে জুটি গড়েন আইপিএলে তুফান বলে পরিচিত ইউসুফ পাঠান।

এ জুটিতেই কলকাতার শিরোপার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখেন। ১৩.৩ ওভারে দলীয় ১৩০ রানে মাথায় পাঠান ৩৬ রান করে করনভির বলে ক্যাচ আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন। এরপর টাইগার সাকিব ব্যাট করতে নেমে সাত বলে ১২ রান করে রান আউটের শিকার হন। মনিশ পাণ্ডে ৫০ বলে ৯৪ রানে ঝড়ো ইনিংস উপহার দিয়ে করনভির বলে ক্যাচ আউটের শিকার হন। সাত বাউন্ডারি ও ছয় ছক্কায় নিজের ইনিংস সাজান পাণ্ডে।

শেষ ১৮ বলে চার উইকেটে কলকাতার জিততে প্রয়োজন মাত্র ২১ রান। শেষ পর্যন্ত তিন বল বাকি থাকতেই তিন উইকেট জয় পায় কলকাতা। পাঞ্জাবের বোলার কারানভির সিং ৪ওভার বল করে ৫৪রান দিয়ে ৪উইকেট নিজের ঝুড়িতে নেন।

এর আগে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে আইপিএলের ফাইনালে রিদ্ধিমান সাহার ঝড়ো শতকে রানের পাহাড় গড়েছে কিংস ইলাভেন পাঞ্জাব। ফলে জিততে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ২০০ রানের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে প্রীতির দল।

ফাইনালে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৩০ রানে দুই উইকেট হারায় পাঞ্জাব। ওয়ান ডাউনে মনান বোহরার সঙ্গে জুটি গড়েন সাহা। জমজমাট ফাইনলে এই জুটি রানের ঝড় তোলে। দুজনেই ব্যক্তিগত অর্ধশতক ছাড়িয়ে যান। মনান বোহরা ব্যাক্তিগত ৬৭ রানে উমেস যাদবের বলে গৌতম গম্ভীরের হাতে তালু বন্দি হন।

কিন্তু এরপরও থেমে থাকেনি সাহা। বিদুৎ গতিতে শতকের পথে এগিয়ে যান তিনি। ফাইনালে ৫৫ বল মোকাবেলা করে ১১৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন সাহা। দশ বাউন্ডারি ও আট ছক্কায় এ রান করেন তিনি। এছাড়া গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (০) ও ডেভিড মিলার (১) রান করেন। নির্ধারিত ওভারে চার উইকেট হারিয়ে ১৯৯ রান সংগ্রহ করে পাঞ্জাব। এর আগে ব্যাঙ্গালোরে স্টেডিয়ামে আইপিএলের সপ্তম আসরের ফাইনালে টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব: ২০ ওভারে ১৯৯/৪ (শেবাগ ৭, ভোহরা ৬৭, বেইলি ১, ঋদ্ধিমান ১১৫*, ম্যাক্সওয়েল ০, মিলার ১*; চাওলা ২/৪৪, যাদব ১/৩৯, নারায়ণ ১/৪৬)।

কলকাতা নাইট রাইডার্স: রবিন উথাপ্পা ৫, গৌতম গম্ভীর ২৩, মনিশ পান্ডে ৯৪, সাকিব আল হাসান ১২, ইউসুফ পাঠান ৩৬, টেন ডেসকাট, সূর্যকুমার যাদব, পিযুষ চাওলা, সুনীল নারাইন, মরনে মরকেল, উমেস যাদব

ম্যান অব দ্যা ফাইনাল : মনিষ পান্ডে (কেকআর)
সর্বোচ্চ রান : রবিন উত্থাপা (কেকআর) (৬৬৬রান)



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই