মেইন ম্যেনু

মাথার খুলি হারিয়ে আড়াই বছর

ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কৃতি ছাত্র অর্ণব দত্ত। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণে ২০১৩-র জানুয়ারিতে অস্ত্রোপচার হয় তার। খুলে রাখা হয় খুলির একটি অংশ। কিন্তু খুলির সেই অংশ হাসপাতাল থেকে হারিয়ে যায়। মস্তিষ্কে সংক্রমণের কারণে শয্যাশায়ী হয়ে পড়েন অর্ণব।

২০১৪-র ডিসেম্বরে কৃত্রিম খুলি প্রতিস্থাপন করা হয়। ধীরে ধীরে সেরে উঠতে থাকেন অর্ণব। কয়েকদিন আগে ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। কিন্তু হাসপাতাল থেকে আর ঘরে ফেরা হল না অর্ণবের। মৃত্যুর সঙ্গে প্রায় আড়াই বছর পাঞ্জা লড়ে শুক্রবার থেমে যায় তার জীবনঘড়ি। খবর এবিপি আনন্দর।

কলকাতার বাইপাস লাগোয়া এই হাসপাতালের নাম রুবি জেনারেল হাসপাতাল। আছে নাম-ধামও। তারপরও মাথার খুলি হারানোর ঘটনা এবং অকালে পৃথিবী থেকে ছেলের এভাবে চলে যাওয়া মেনে নিতে পারেননি মা রিনা দত্ত। তার মনে কেবলই প্রশ্ন, কী করে অর্ণবের খুলির অংশ হারিয়ে ফেলল রুবি ?

রিনা দত্তর আরো দুঃখ, ২০১৩ সালের ১৭ জানুয়ারি এই হাসপাতালে এন্ডোস্কপি করতে গিয়ে মৃত্যু হয় অর্ণবের বাবা আশিস দত্তের। বাবার মৃত্যুকে সইতে পারেননি অর্ণব। সেদিন রাতেই তিনতলা থেকে ঝাঁপ দেন তিনি। তার ব্রেন হেমারেজ হয়। আর সে সূত্র ধরেই হারিয়ে গেল অর্ণবও।

পরপর দুটি আঘাতে জর্জরিত রিনা দত্তর প্রশ্ন, সরকারি দফতর থেকে ফাইল উধাও হয়, হাসপাতাল থেকে শিশু উধাওয়ের অভিযোগও সামনে আসে। কিন্তু শহরের এক নামি বেসরকারি হাসপাতাল থেকে রোগীর মাথার খুলির অংশ উধাও হল কী করে?






মন্তব্য চালু নেই