মেইন ম্যেনু

‘বাংলাদেশিরা ভারত ছাড়, নইলে ধর্মান্তর’

এবার ভারতে বসবাসরত বাংলাদেশিদের ওপর হুমকির সুর চড়ালেন দেশটির কট্টরপন্থি রাজনৈতিক দল বাজরাং দল। এই দলের মিরাটের আহ্বায়ক বলরাজ দুনগার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন, ‘বাংলাদেশিরা ভারত ছাড়, নইলে ধর্মান্তর করানো হবে।’

ধর্মান্তর করানোর ব্যাপারে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের দ্বিমত থাকলেও অবৈধ বাংলাদেশিদের ভারত ছাড়ার ব্যাপারে তারা এককাট্টা।

বুধবার টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের এক খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বলরাজ দুনগার বলেছেন, ‘ভারতে অবৈধভাবে বসবাসকারীদের অবশ্যই ভারত ছাড়তে হবে। যদি তারা এ দেশ থেকে ফিরে না যায়, তবে তাদের হিন্দুধর্মে ধর্মান্তরিত করা হবে। তবে আমাদের প্রথম দাবি তারা দেশ ত্যাগ করুক। তারা আমাদের সম্পদের অপব্যবহার করছে। এরপরও তারা যদি ভারতে থাকতে চায়, তবে তাদের হিন্দু বানানো হবে এবং আমাদের জীবনাচরণ মেনে চলতে হবে।’

উত্তর প্রদেশের প্রাচীন শহর মিরাটে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ ও বিশ্ব হিন্দু পরিষদের (আরএসএস) পরিচালিত ‘ঘরে ফেরা’ কর্মসূচিকে সমর্থন করে মঙ্গলবার বক্তব্য দেন বলরাজ দুনগার। ‘ঘরে ফেরা’ কর্মসূচি হলো- যেসব হিন্দু ভারতের মুসলিম শাসনামলে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিল, তাদের আবার হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরকরণ।

এই ঘরে ফেরা কর্মসূচি নিয়ে দেশটির বর্তমান সরকার দেশি-বিদেশি চাপের মুখে পড়েছে। বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট সরকারের বাইরে থাকা রাজনৈতিক দলগুলো পার্লামেন্টে এ নিয়ে ধারাবাহিক নিন্দা প্রস্তাব জানিয়ে যাচ্ছে। ধর্মান্তর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদি মৌখিকভাবে পার্লামেন্টে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু বিরোধী দলগুলো মোদির লিখিত বিবৃতির দাবিতে সংসদে কয়েকবার ওয়াকআউটও করেছে।

কিন্তু সেই ধর্মান্তরকরণকেই সমর্থন জানিয়েছে এবার বাংলাদেশিদের ধর্মান্তরের হুমকি দিলেন বলরাজ দুনগার। ‘ঘরে ফেরা’ কর্মসূচিকে সমর্থন জানিয়ে তিনি বলেন, কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট সরকারের সময়েও তারা এই কর্মসূচিকে সমর্থন দিয়েছেন এবং এখনো তা চলছে।

বলরাজ দুরগান আরো বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ৪৩ বছর পার হয়ে গেলেও ভারতে আশ্রয় নেওয়া বাংলাদেশিরা এখনো এ দেশে বসবাস করছে। তাদের এখন ফিরে যাওয়া উচিত। কারণ, তারা অবৈধ অভিবাসী। তারা যদি ধর্ম পরিবর্তন করেও, তবে তারা নাগরিকত্বের বৈধতা পাবে না। আমাদের সংখ্যাটা শুধু বাড়াবে।

তবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক সুদর্শন চক্র জানিয়েছেন, তিনি বাজরাং দলের সঙ্গে একমত নন। তিনি বলেন, ভারতে থাকা বাংলাদেশিদের হিন্দুকরণ আমাদের উদ্দেশ্য নয়। সরকারি হিসাব মতে, তিন কোটি বাংলাদেশি অবৈধভাবে ভারতে বাস করছে। তাদের অবশ্যই ভারত ছাড়তে হবে। তাদের কারণে বেকারত্ব ও সন্ত্রাস বৃদ্ধি পাচ্ছে। তারা ভারতের জাতীয়তাবাদী চিন্তার পরিপন্থি কাজে লিপ্ত থাকে। এর পরও কয়েক সাবেক সরকারের আমলে তারা নাগরিক সুবিধা পেয়েছে। তাদের রেশন কার্ড ও জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়া হয়েছে। তাদের এ দেশে থাকা নিয়ে আর কোনো কথা নেই। তাদের ভারত ছাড়তেই হবে।

ভারতে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের সংখ্যা নিয়ে তথ্যের গরমিল রয়েছে। ২০০১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী, ভারতে ৩০ লাখ অবৈধ বাংলাদেশি রয়েছে। ২০১২ সালে দেশটির সে সময়ের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, গত এক দশকে বাংলাদেশ থেকে ১৪ লাখ মানুষ অবৈধ অভিবাসী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছে। ২০০৭ সালে কেন্দ্রীয় সরকারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ভারতে ২ লাখ অবৈধ অভিবাসী রয়েছে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই