মেইন ম্যেনু

‘পিয়াস করিমের মরদেহ নেওয়ার চেষ্টা হলে প্রতিরোধ’

কোনো অবস্থায় পিয়াস করিমের মরদেহ শহীদ মিনারে আনতে না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ। মরদেহ শহীদ মিনারে আনার চেষ্টা করা হলে সর্বাত্মক প্রতিরোধ গড়ে তোলা হলে বলে জানিয়েছে সংগঠনটি।

ছাত্রলীগ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ জাসদ, ছাত্রমৈত্রী, ছাত্র আন্দোলন, ছাত্র সমিতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বাসদ, গণতান্ত্রিক ছাত্র কেন্দ্র মিলে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা করেছে।

বুধবার বিকেল ৩টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এ ঘোষণা দেন। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ জাসদের সভাপতি মোহাম্মদ শামসুল ইসলাম সুমন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে তারা শহীদ মিনারে অবস্থান নেবেন। স্বাধীনতার পক্ষের ছাত্র জনতাকে এই আন্দোলনে শরিক হওয়ার জন্য আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ‘পিয়াস করিম যুদ্ধাপরাধী পরিবারের একজন সদস্য। তার বাবা শান্তি কমিটির কুমিল্লা জেলার নেতা ছিলেন। তিনি নিজেও আমৃত্যু গোলামীর চর্চা করে গেছেন। তিনি বিভিন্ন সময়ে টেলিভিশনের টকশোতে এবং লেখালেখির মাধ্যমে নিজের স্বাধীনতারবিরোধ মনোভাবের পরিচয় প্রকাশ করে গেছেন। তিনি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে উসকানি সৃষ্টির অপচেষ্টা করেছেন।’

মোহাম্মদ শামসুল ইসলাম সুমন বলেন, ‘পিয়াস করিম শাহবাগের আন্দোলনকে ফ্যাসিবাদী আন্দোলন হিসেবে অভিহিত করেন। ৫ মে মতিঝিলে ইসলামে নামধারী উগ্র জঙ্গীবাদী অপশক্তির চক্রান্ত দমনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে অভিযান চালায় তার বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য প্রচার করেন। এই পিয়াস করিমের মরহেদ আমরা শহীদ মিনারে আনতে দেব না।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমূল আলম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ জাসদের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান আলী সাজু, ছাত্রমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক তানভীর রুসমত, ছাত্র আন্দোলনের সভাপতি মঞ্জুর রহমান মিঠু, ছাত্র সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল শান্ত, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বাসদের মনিরুজ্জামান জুয়েল, গণতান্ত্রিক ছাত্রকেন্দ্রের সভাপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান মুক্তা প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই