মেইন ম্যেনু

দাড়ি রাখায় ও বোরকা পরায় স্বামী-স্ত্রীর দন্ড

চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে দাড়ি রাখার দায়ে এক মুসলিম ব্যক্তিকে ছয় বছর ও বোরকা পরায় তার স্ত্রীকে দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। জিনজিয়াংয়ের একটি আদালতের সূত্রে গত রবিবার দেশটির একটি পত্রিকা এ কথা জানিয়েছে। খবর এএফপির।

চায়না ইয়ুথ ডেইলির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কাশগড় শহরে দাড়ি রাখার অপরাধে উইঘুর সম্প্রদায়ের ৩৮ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। একই রায়ে বোরকা পরার অপরাধে ওই ব্যক্তির স্ত্রীকে দুই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি ২০১০ সাল থেকে ইসলামী রীতি অনুযায়ী দাড়ি রাখছেন। একই সময় থেকে তার স্ত্রী বোরকা পরে আসছেন।

দাড়ি রাখা ও বোরকা পরার মাধ্যমে ওই দম্পতি ‘প্ররোচণামূলক আচরণ’ করছেন বলে উল্লেখ করেছে আদালত।

এক বছরেরও বেশী সময় ধরে জিনজিয়াং প্রশাসন পুরুষদের দাড়ি রাখার বিপক্ষে প্রচারণা চালিয়ে আসছে। তাদের দাবি, এ ধরনের অনুশাসন চরমপন্থীদের আচরণকে সমর্থন করে।

একই সঙ্গে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নারীদের দেহাবরণ হিসেবে বোরকা পরার বিপক্ষে প্রচারণা চালানো হয়। ‘প্রোজেক্ট বিউটি’ নামে ওই প্রচারণায় নারীদের মাথায় স্কার্ফ না পরতেও অনুপ্রাণিত করা হয়।

কাশগড় প্রশাসনের বরাতে চীনা পত্রিকাটি জানিয়েছে, আদালতে উঠানোর আগে ওই দম্পতিকে বেশ কয়েকবার সতর্ক করা হয়েছে।

এদিকে দেশটির মানবাধিকার সংগঠনগুলো অভিযোগ করেছে, উইঘুর সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতনের অংশ হিসেবেই তাদের ধর্মীয় মূল্যবোধ ও সংস্কৃতির ওপর আঘাত হানা হচ্ছে।

এ অভিযোগের ব্যাপারে কাশগড় প্রশাসনের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।






মন্তব্য চালু নেই