মেইন ম্যেনু

ঢাকায় ১৭৫ টাকায় ফ্ল্যাট

দিনে মাত্র একশ পচাত্তর টাকা জমায় এক বেডের ফ্ল্যাট পাবেন রাজধানীর বস্তির মানুষ। প্রতিদিন ২৫০ টাকা জমা দিলে পাবেন দুই বেডের ফ্ল্যাট। ২০ বছর পরে ফ্ল্যাটের মালিক হতে পারবেন তারা। মিরপুরে এমনই একটি প্রকল্প হাতে নিচ্ছে সরকার।

এছাড়া আবাসন শিল্পের বিকাশে ২০ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনা তহবিল গঠন করার পরিকল্পনা করেছে সরকার। এই তহবিলের মাধ্যমে সারা দেশে সাধারণ মানুষের আবাসন সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হবে বলে জানিয়েছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আবাসন ব্যবসায়ী সমিতি- রিহ্যাবের শীতকালীন মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গণপূর্তমন্ত্রী একথা জানান।

নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষেরা যাতে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ফ্ল্যাট কিনতে পারেন তার জন্য সুদের হার একক সংখ্যায় নামিয়ে আনার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

রিহ্যাবের সভাপতি আলমগীর সামশুল আলামীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘দেশের সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হলে আমাদের আবাসন শিল্পখাতকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। এজন্য সরকার এই খাতে প্রণোদনা দেবে।’

তিনি বলেন, ‘সরকার ইতিমধ্যে ১ লাখ ফ্ল্যাট নির্মাণে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু করেছে। এই প্রকল্পের আওতায় উত্তরায় ১৮ হাজার, ঝিলমিলে ১০ হাজার এবং পূর্বাচলে ৮ হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হয়েছে।’

মন্ত্রী জানান, মিরপুর এবং খুলনায় পরীক্ষামূলকভাবে বস্তিবাসীদের জন্য ৪ হাজার ৫০ বর্গফুটের দুই বেডের এবং ৩ হাজার ৫০ বর্গফুটের এক বেডের ফ্ল্যাট নির্মাণ করবে সরকার। এছাড়াও সরকার রিহ্যাবের সঙ্গে সরকারি-বেসরকারি অংশিদারিত্বে (পিপিপি) মিরপুরে ১৮৭ একর জমির ওপর ৪০ হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণ করার নতুন একটি প্রকল্পের পরিকল্পনা করেছে।

গণপূর্ত মন্ত্রী বলেছেন, দেশের প্রতিটি শহর এবং অঞ্চলে যাতে আবাসন সমস্যা না থাকে, সবাই যাতে গৃহ পান তার জন্য আবাসন শিল্পকে সম্ভব সব রকম সহযোগিতা দেওয়া হবে। তবে যেখানেই এই আবাসন শিল্প গড়ে উঠবে সেখানে স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (এসটিপি) থাকতে হবে।

তিনি বলেন, ‘আবাসন শিল্পগুলো যদি খাল, লেক, নালা না মেরে আধুনিক পদ্ধতিতে বর্জ্য ও পয়:নিষ্কাষণ ব্যবস্থা গড়ে তোলে তাহলে আবাসন শিল্পের অনুমতি দিতে কোন বাধা নেই। খেলার মাঠ ও মুক্ত জলাশয় রেখে কোন আবাসন শিল্প গড়ে উঠলে তা সরকার বিবেচনা করবে।’

নসরুল হামিদ বিপু জানান, এই মুহূর্তে দেশে আবাসন শিল্প মালিকদের ১০ হাজার ফ্ল্যাট অবিক্রিত অবস্থায় পড়ে আছে। যার বাজার মূল্য ১৫ হাজার কোটি টাকা।

এই অবিক্রিত ফ্ল্যাটগুলোতে গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ সমস্যা ছাড়াও অনেক ক্ষেত্রে আইনগত জটিলতা রয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে এই সমস্যাগুলো সমাধানের আশ্বাস চান সাবেক রিহ্যাব সভাপতি নসরুল হামিদ বিপু।
গণপূর্তমন্ত্রী, শীতকালীন রিহ্যাব মেলার উদ্বোধন শেষে বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন। মেলা চলবে আগামী ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত।






মন্তব্য চালু নেই