মেইন ম্যেনু

ট্রেনের অগ্রিম টিকিট: ২০ টাকায় সিরিয়াল বিক্রি

প্রতিবছরের মতো এবারো পবিত্র ঈদ-উল-আজহায় যাত্রী সাধারণের সেবা নিশ্চিত করতে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। শুক্রবার সকাল নয়টায় আগামী ১ অক্টোবরের টিকিট বিক্রি শুরু হয়।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর কঠোর নজরদারির মধ্যেও দালালরা যাত্রীদের মধ্যে ঢুকে ২০ টাকা করে নিয়ে দীর্ঘ লাইনে অগ্রভাগে সিরিয়াল করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসময় যাত্রীরা হৈ চৈ করে উঠলে কর্তব্যরত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর সদস্যরা এলে দালালরা পালিয়ে যায়।

ঈদে প্রিয়জনদের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঘরমুখো মানুষ অগ্রিম টিকিটের জন্য কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ভীড় করছেন। শুক্রবার সকালে স্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে যাত্রীদের তীব্র ভিড়। যাত্রীরা অগ্রিম টিকিট সংগ্রহের জন্য দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন। ভীড় সামলাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে দায়িত্বরত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর সদস্যদের।

এ বিষয়ে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ম্যানেজার খায়রুল বশীর বলেন, ‘আমাদের কাছে এমন কোনো অভিযোগ আসেনি। স্টেশন জুড়ে পুলিশ-র‌্যাব ও আমাদের নিজস্ব আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর সদস্যরা রয়েছে। এর মধ্যে কেউ কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে পারবে না।’

তিনি আরো বলেন, ‘কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রেলের এই কর্মকর্তা জানান, অগ্রিম টিকিটি বিক্রির শুরুর দিনেই ২০ হাজার টিকিট দেয়া হবে। সকাল নয়টা থেকে ২০ কাউন্টারে টিকিটি বিক্রি শুরু হয়েছে। চলবে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত। এছাড়া ২৭ সেপ্টেম্বর বিক্রি হবে ২ অক্টোবরের টিকিট, ২৮ সেপ্টেম্বর বিক্রি হবে ৩ অক্টোবরের টিকিট, ২৯ সেপ্টেম্বর বিক্রি হবে ৪ অক্টোবরের টিকিট, ৩০ সেপ্টম্বর বিক্রি হবে ৫ অক্টোবরের টিকিট।

তিনি আরো জানান, ঈদের যাত্রীদের বাড়তি সুবিধা দিতে তিনটি স্পেশাল ট্রেন সার্ভিসের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ স্পেশাল, ঢাকা-পার্বতীপুর স্পেশাল ও ঢাকা-খুলনা স্পেশাল।

তিনি আরো জানান, আগামী ৩ অক্টোবর থেকে ফিরতি ট্রেনের অগ্রিম টিকিট দেয়া হবে। একজন যাত্রী চারটি করে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। ৩ অক্টোবর বিক্রয় হবে ৭ অক্টোবরের ফিরতি টিকিট। ধারাবাহিকভাবে ১১ অক্টোবর পর্যন্ত ফিরতি বিক্রি করা হবে।






মন্তব্য চালু নেই