মেইন ম্যেনু

‘টেপবন্দী’ কথোপকথন, পাকিস্তানে দাউদ বহাল তবিয়তেই, হাতে চাইল ভারত

বহাল তবিয়তেই পাকিস্তানে রয়েছে দাউদ ইব্রাহিম। এই প্রথম মোস্ট ওয়ান্টেড দাউদের কথোপকথন টেপবন্দি করার দাবি  করল ‘নিউজ মোবাইল ডট ইন’ নামে একটি ওয়েবসাইট। স্যাটেলাইট নজরদারির মাধ্যমে ১৯৯৩-এর মুম্বই বিস্ফোরণ মামলায় অভিযুক্ত ডন দাউদের কথোপকথনটি রেকর্ড করেছে একটি বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থা। ওয়েবসাইটটির দাবি, রেকর্ডে দুবাইয়ের এক সঙ্গীর সঙ্গে সম্পত্তি এবং টাকাপয়সা নিয়ে কথা বলতে শোনা গিয়েছে দাউদকে। তাদের দাবি, স্যাটেলাইট নজরদারির মাধ্যমে জানা গিয়েছে সেসময় দাউদ করাচির অভিজাত এলাকা ক্লিফটনে ছিলেন। ওয়েবসাইটটি আরও জানিয়েছে, করাচিতে এখন জমির কারবার করছে দাউদ। সে নিজেকে বেশ কেউকেটা মনে করে। উল্লেখ্য, পাকিস্তান বহুবারই সেদেশে দাউদের থাকার খবরের সত্যতা খারিজ করেছে। কিন্তু দাউদের কথপোকথনের টেপবন্দি হওয়ায় পাকিস্তানের দাবির সত্যতাই আরও একবার প্রশ্নের মুখে পড়ল। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই ওই বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থার কাছ থেকে টেপটি চেয়েছেন ভারতীয় গোয়েন্দারা।

এদিকে এই প্রেক্ষাপটেই আজ ফের দাউদকে হাতে পেতে চেয়েছে নয়াদিল্লি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র রাষ্ট্রমন্ত্রী কিরেন রিজুজু বলেছেন, ভারতের অবস্থান খুব স্পষ্ট।পাকিস্তানেই নিরাপদ আশ্রয়ে রয়েছে দাউদ এবং সে আছে করাচিতে, দীর্ঘদিন ধরেই এটা বলছে ভারত।সাংবাদিকদের রিজুজু বলেন, বহুদিন ধরে ওকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়ার দাবি করা হচ্ছে ইতিমধ্যেই ওর ওদেশে থাকার ব্।যাপারে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ পাকিস্তানকে দেওয়া হয়েছে।এবার পাকিস্তানকে ব্যবস্থা নিয়ে দাউদকে আমাদের হাতে তুলে দিতে হবে।১৯৯৩-এর মুম্বই সিরিয়াল বিস্ফোরণ মামলার অভিযুক্ত মাফিয়া ডনকে ভারতের মোস্ট ওয়ান্টড সন্ত্রাসবাদী আখ্যা দিয়ে লখনউয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহও বলেছেন, বারংবার পাকিস্তানকে বলা হয়েছে দাউদকে হস্তান্তরের ব্যাপারে।কবে ভারত তাকে হাতে পেতে পারে, প্রশ্ন করা হলে রাজনাথ মন্তব্য করেন, অপেক্ষা করুন, দেখুন কী হয়

রিজুজু আবার বলেন, সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় আন্তরিক হয়ে থাকলে ভারতের সঙ্গে সহযোগিতা করুক পাকিস্তান।আমরা চাই, পাকিস্তানকে যে তথ্যপ্রমাণ দেওয়া হয়েছে, তার ভিত্তিতে ওরা ব্যবস্থা নিক।।






মন্তব্য চালু নেই