মেইন ম্যেনু

জয়ললিতার কারাদণ্ডে আত্মহত্যা মিছিল

ব্যাঙ্গালুরের এক আদালত আয় বহির্ভূত সম্পদ সংক্রান্ত বিচারের রায়ে তামিল নাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা জয়ারামের চার বছরের কারাদণ্ড বিধান করে। ইতোমধ্যে তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে, এবং ভিআইপি সেলে বন্দিজীবন যাপন শুরু করেছেন তিনি ৭৪০২ নাম্বার কয়েদী হিসেবে। এর বাইরে, জয়ললিতার বিরুদ্ধে অভিযোগ ও দণ্ডাজ্ঞার প্রতিক্রিয়ায় তামিল নাড়ুতে ঘটে চলেছে একের পর এক বিস্ময়কর হৃদয় বিদারক ঘটনা।

এখন পর্যন্ত অন্তত ১৬ জন ললিতাভক্ত তার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ কিংবা রায়ের আঘাত সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা এবং আকস্মিক হৃদরোগজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেছেন। দুই জন নিজ শরীরে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলেন, এ মুহূর্তে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে অবস্থান করছেন।

পুলিশ সূত্রে তাদের আত্মহত্যার খবরগুলো জানা গেছে, গণমাধ্যমে যা প্রকাশিত হওয়ার পর স্তম্ভিত হয়ে গেছে মানুষ। তিন জন গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। একজন চলন্ত বাসের সামনে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। অপর এক জন করেছেন বিষপান। দশজন আকস্মিকভাবে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন। শেষ মানুষটির মৃত্যুর কারণ অজ্ঞাত। পুড়ে যাওয়া রোগীদ্বয়ের একজন দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র, তাদের অবস্থা এতোটাই শোচনীয় যে তারা গতায়ু হলে অবাক হওয়ার থাকবে না।

সুবিশাল তামিল নাড়ু অঞ্চলের পুরোটা জুড়ে আরও অসংখ্য প্রতিক্রিয়ামূলক ঘটনা ঘটে চলেছে। আত্মহত্যাকারী ও হৃদরোগে মৃতের তালিকায় আরও অনেক নাম যুক্ত হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ভারতে আত্মহত্যাপ্রবণ মানুষের সংখ্যা বিশ্বে সর্বাধিক- বিভিন্ন পরিসংখ্যানে এ তথ্য বারবার উঠে এসেছে। তার মধ্য থেকে তামিল নাড়ুর কথা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। শুধুমাত্র গত বছর তামিল নাড়ুতে ১৬,৬০০ মানুষ বিভিন্ন কারণে আত্মহত্যা করেছে। বলা হয়ে থাকে, রাজনীতিক নেতানেত্রী ও চলচ্চিত্রের তারকারা সেখানে জীবনের চেয়ে প্রিয়।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই