মেইন ম্যেনু

যশোরের খবর (২৪/৬/১৪)

আবিদুর রেজা খান, যশোর অফিস:
## যশোরে বোমাসহ তিন সন্ত্রাসী আটক
যশোর অফিস: যশোর কোতয়ালি থানা ও সদর পুলিশ ফাঁড়ি পৃথক অভিযান চালিয়ে ৪টি শক্তিশালী বোমা ধারালো দা ও চাপাতিসহ ৩ জন সন্ত্রাসীকে আটক করেছে। আটককৃতরা হচ্ছে, যশোর শহরের ঘোপ জেল রোডস্থ বর্তমানে শংকরপুর মাঠপাড়ার মৃত আব্দুল হাইয়ের পুত্র আশরাফুল হোসেন প্রিন্স, সিটি কলেজপাড়া বউ বাজার এলাকার মৃত সিরাজুল ইসলামের পুত্র আলামিন শিকদার ও একই এলাকার হুমায়ূন কবিরের পুত্র রুবেল ইসলাম।
পুলিশ জানায়, রোববার রাতে সদর পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা শহরের মনিহার এলাকা সন্ত্রাসী চাঁদাবাজ আলামিন শিকদার ও রুবেল ইসলামকে একটি ধারালো চাপাতিসহ আটক করে। অপর দিকে, কোতয়ালি থানা পুলিশ রোববার রাত আনুমানিক ৯ টার সময় শহরের শংকরপুর গোলপাতা মসিজদ পাড়া জনৈক ইনতাজ আলী শেখের আপন এন্টার প্রাইজের সিমেন্টের দোকানের সামনে থেকে প্রিন্সকে ৪ টি শক্তিশালী বোমা ও একটি ধারালো দাসহ আটক করে। এ সময় প্রিন্সের সহযোগী ৩/৪জন পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে প্রিন্সের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে এবং আলামিন ও রুবেল ইসলামকে নিয়মিত মামলায় সোমবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

## অভয়নগরে ছাত্রলীগের কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা
যশোর অফিস: যশোরের অভয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী আরিফুল ইসলাম ওরফে নিশান (৩৫) দুর্বৃত্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খুন হয়েছে। রোববার রাত সাড়ে ১০ টার সময় উপজেলার মোয়াল্লেমতলা গ্রামে খুনের ঘটনা ঘটে। আরিফুল উপজেলার মোয়াল্লেমতলা গ্রামের সুজাউল হকের পুত্র। তিনি যশোর জুট ইন্ডাস্ট্রিজের (জেজেআই) বদলি শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, আরিফুল রোববার রাত আনুমানিক ১০টার দিকে যশোর জুট ইন্ডাস্ট্রিজ থেকে মোয়াল্লেমতলা গ্রামের নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে ফিরছিলেন। গ্রামের আবুল সরদারের বাড়ির সামনে পৌঁছালে ওৎ পেতে থাকা প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা অর্তকিত ভাবে তাঁকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে লাশ ফেলে রেখে যায়। খবর পেয়ে অভয়নগর থানা পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে। অভয়নগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোল্যা খবির আহমেদ বলেন, ‘সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নিশান খুন হয়েছেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে। সোমবার নিশানের লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন শেষে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়।

## যশোরে আফিল ফিলিং স্টেশনে ডাকাতি
যশোর অফিস: যশোর-ঝিনাইদহ সড়কের সাতমাইল নামক স্থানে রোববার দিবাগত রাতে আফিল ফিলিং স্টেশনে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ১০/১২ জনের একটি সশস্ত্র ডাকাতদল ফিলিং স্টেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোনসেট নিয়ে গেছে। ডাকাতদলের আক্রমনে ইদ্রিস আলী নামে এক নৈশ প্রহরী আহত হয়েছে। তাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত ইদ্রিস আলী জানিয়েছেন, রোববার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ১০/১২ জনের একটি ডাকাতদল ফিলিং স্টেশনে ঢোকে। এরপর অস্ত্রের মুখে নজেলম্যান শাহীন, বাচ্চু, ম্যানেজার শাহীনসহ অন্যান্যদের জিম্মি করে। এরপর ক্যাশবাক্স ভেঙ্গে নগদ ২৫ হাজার টাকা, ৪টি মোবাইল ফোন সেট নেয়। এরপর ফিলিং স্টেশনে রাখা একটি ট্রাকের মধ্যে ঘুমিয়ে থাকা চালককে মারপিট করে তার কাছ থেকে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন সেট নিয়ে যায়। ডাকাতদল পায়ে হেটে চলে যায়। সকালে সংবাদ পেয়ে কোতোয়ালি থানা পুলিশ সেখানে হাজির হয় এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানার ওসি সহিদুল ইসলাম বলেছেন, ফিলিং স্টেশনে ডাকাতি হওয়ার সংবাদ শুনেছি। সেখানে পুলিশ গিয়ে ঘটনা তদন্ত করছে। প্রকৃত ঘটনা জানার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ

## যশোরে গাঁজাসহ স্বামী স্ত্রী আটক
যশোর অফিস: আধা কেজি গাঁজাসহ যশোরের চাঁচড়া ফাঁড়ি পুলিশ সোমবার দুপুরে চাঁচড়া রেলগেট এলাকা থেকে এক দম্পতিকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো, ওই এলাকার আবুল হোসেন এবং তার স্ত্রী রিজিয়া বেগম ওরফে তকিয়া।
চাঁচড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই জামাল উদ্দিন জানিয়েছেন, সোমবার বেলা দেড়টার দিকে গোপন সূত্রে সংবাদ পেয়ে আবুল হোসেনের বড়িতে অভিযান চালানো হয়। এ সময় তার ঘরের মধ্যে খাটের নিচ থেকে একটি পলেথিনে মোড়ানো গাঁজা উদ্ধার করা হয়। গাঁজার পরিমান আধা কেজি। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে।

## যশোর পৌরসভার উদ্যোগে মানববন্ধন
যশোর অফিস: যশোর পৌরসভার মেয়র, কাউন্সিলর ও কর্মচারীদের নামে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার না হলে পৌরবাসীর সকল সেবা বন্ধ করে দেয়া হবে বলে হুশিয়ারি দেয়া হয়েছে। সোমবার সকালে শহরের প্রাণকেন্দ্র দড়াটানা থেকে চিত্রামোড় পর্যন্ত দীর্ঘ মানববন্ধনে এই হুশিয়ারি দেয়া হয়। মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন পৌরসভার আন্দোলন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক আফজাল হোসেন, মনিরুল ইসলাম, মোকছেদ আলী, শহিদুল ইসলাম, মাসুদুর বারী কাক্কু, আবুল কালাম আজাদ, সেলিম হোসেন, আলাউদ্দিন প্রমুখ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন. জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের অনুরোধে মেয়র সারথি পৌর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখলের বিষয়টি মীমাংসা করতে গিয়েছিলেন। এ ঘটনায় মেয়র, স্থানীয় কাউন্সিলর ও কর্মচারীদের নামে মামলা করা হয়েছে। অথচ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারকে মামলায় আসামি করা হয়নি। সেদিন জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপস্থিত থাকলেও তাদেরকে মামলা থেকে বাদ রাখা হয়েছে। একই সাথে আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে মামলা প্রত্যাহার না করলে পানি, বিদ্যুৎ ও পয়নিষ্কাষণসহ সেবামূলক কর্মকাণ্ড বন্ধ করে দেয়া হবে।

## মানব পাচার ও মাদক চোরাচালানীদের সাথে আপস নয়: বিজিবির রিজিয়ন কমান্ডার
যশোর অফিস: যশোরসহ দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্তে মানব পাচার ও মাদক চোরাচালানীদের সাথে কোন প্রকার আপস নয় বলে জানিয়েছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ’র (বিজিবি) দক্ষিণ-পশ্চিম রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হাবিবুল করিম। সোমবার সকালে যশোরের ঝুমঝুমপুরস্থ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। তিনি জানান, সীমান্ত এলাকায় আগামী মাসেই চোরাচালানরোধে প্রচারণামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সীমান্তের বিভিন্ন এলাকায় পোস্টার, ব্যানার, লিফলেট বিলি করা হবে। সীমান্ত এলাকার লোকজন সচেতন হলে চোরাচালান ও মানব পাচার কমে আসবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এক পরিসংখ্যানে তিনি জানান, গত মে মাসে এই রিজিয়নে আটক ৪৭ কোটি ৪৪ লাখ ১৩ হাজার ৪১৩ টাকার ভারতীয় পণ্য কাস্টমসে জমা দেয়া হয়েছে। এ সময়ে ৮১৭টি মামলা এবং পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে ৩৩ জনকে। যা অন্য যেকোন রিজিয়নের চেয়ে বেশি। তিনি বলেন, দেশের ৪টি রিজিয়ন অফিসের মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চল রিজিয়নে বেশি চোরাচালান ও মানবপাচার হয়। বিশেষ করে আগামী দু’ ঈদকে সামনে রেখে চোরাচালানের মাত্রা বেড়ে যাবে। সেক্ষেত্রে বিজিবি সদস্যরা আরও বেশি মাত্রায় সতর্ক থাকবে। তিনি বলেন, যেখানে ভারতীয় অবৈধ পণ্য সেখানেই থাকবে বিজিবির অভিযান। এক্ষেত্রে কোন ছাড় দেয়া হবে না। তিনি চোরাচালান সম্পর্কিত যেকোন তথ্য দিতে বিজিবির রিজিয়ন অফিসে ০১৭৬৯-৬০৪০০১ ও ০১৭৬-৯০৪০০০ নম্বরে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।

## যশোরে আটক পাঁচ ভারতীয় নাগরিকের বিরুদ্ধে মামলা
যশোর অফিস: যশোরে দু’কোটি টাকার সোনাসহ পাঁচ ভারতীয় নাগরিক আটকের ঘটনায় যশোর কোতোয়ালি থানায় বিজিবির ২৬ ব্যাটালিয়নের পক্ষ থেকে মামলাটি করেছেন হাবিলদার আজিজুল হক। সোমবার পাঁচ জনকে থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। তাদের আদালতে পাঠিয়ে প্রত্যেকের বিরুদ্ধে সাতদিন করে রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলো, ভারতের নাগপুর শহরের শান্তিনগর নিকসি এলাকার ১৩২ নম্বর ফ্লটে চাঁদলাল বাজাজের ছেলে বিজয় কুমার, অকেলা কাছিকলি সিন্দি শহরের বিডিএনসিসি অফিস এলাকার অশোক রাধাঁরামের ছেলে রহিত অশোক, নাগপুরের জরিপটকা শহরের হুদকো কলোনী এলাকার অশোক অধনীর ছেলে কামাল, আহমেদাবাদ শহরের এনআর অম্বিকানগর ৪৮, ভিনমার্ক পার্ক এলাকার অম্বনী লক্ষণভাই হাটচাঁদের ছেলে রাকেশ লক্ষণভাই এবং নাগপুর সিটির জরিপটকা কান্তরকনগর নিউ কোয়াটার বোল্ড নং ‘সি’র গোলাবোমাল ক্ষতরীর ছেলে রামকুমার ক্ষতরী। এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, আসামিরা গত ১৯ জুন দুবাই থেকে ঢাকা নামে। ২২ জুন তারা ভারতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে যশোরের বেনাপোলে যায়। সেখান থেকে ফের ওই দিনই তারা ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশ্যে বিআরটিসির একটি বাসে (ঢাকামেট্ট্রো-গ-৬৭৮৭) উঠে। বাসটি যশোর-নোপোল সড়কের পুলেরহাট আকিজ পেট্রোলিয়ামের সামনে পৌছালে গতিরোধ করে বাস তল্লাশি করা হয়। বাস থেকে ওই পাঁচ ভারতীয় নাগরিককে আটক করে তাদের কাছে ২ কোটি ২০ লাখ টাকা মূল্যের ৩৬পিস সোনার বার উদ্ধার করা হয়। এছাড়া ৪৭ হাজার ৭শ’২০ ভারতীয় রুপি, বাংলাদেশি ৪ হাজার ৩শ’৩০ টাকা এবং ১৮২ দেরহাম উদ্ধার করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মাসুদুর রহমান জানিয়েছেন, আটক পাঁচ ভারতীয় নাগরিককে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে সাতদিন করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই