মেইন ম্যেনু

আপিলে যেতে পারবেন আদালত অবমাননায় দণ্ডপ্রাপ্তরা

আন্তজার্তিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে আদালত অবমাননায় দণ্ডপ্রাপ্ত যে কেউ চাইলে সম্পূর্ণ ন্যায় বিচারের স্বার্থে আপিল বিভাগে যেতে পারেন। তখন সংবিধানের ১০৪ অনুচ্ছেদ অনুসারে আপিল বিভাগ দেখবেন আপিল চলবে কিনা।

বুধবার বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ শুনানি শেষে পর্যাবেক্ষণসহ রিটটি নিষ্পত্তি করে এ আদেশ দেন।

আবেদনকারীদের আইনজীবী রাশনা ইমাম সাংবাদিকদের বলেন, ট্রাইব্যুনালে আদালত অবমাননায় দণ্ডপ্রাপ্ত যে কেউ চাইলে সম্পূর্ণ ন্যায় বিচারের স্বার্থে আপিল বিভাগে যেতে পারেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। আবেদনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার আখতার ইমাম ও রাশনা ইমাম।

ব্রিটিশ নাগরিক ও সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানকে ট্রাইব্যুনালের জরিমানার রায়ের বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়ে বিবৃতি দেওয়ায় কেন তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে ২৩ বিশিষ্ট নাগরিকের বিরুদ্ধে গত ১ এপ্রিল রুল জারি করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। বুধবারই তারা রুলের জবাবও দিয়েছেন। আগামী ৬ মে পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য হয়েছে ট্রাইব্যুনালে।

অভিযুক্ত ২৩ জনের মধ্যে ১২ জন রিটটি দায়ের করেছিলেন হাইকোর্টে। তারা হচ্ছেন- নারী অধিকারকর্মী শিরিন পারভিন হক, সাংবাদিক ও লেখক আফসান চৌধুরী, আলী আহম্মেদ জিয়াউদ্দিন, আলোকচিত্রী ড. শহীদুল আলম, সঙ্গীতশিল্পী আনুশেহ আনাদিল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক ড. সি আর আবরার (রফিকুর আরবার), নারী গ্রন্থ প্রবর্তনার নির্বাহী পরিচালক ফরিদা আক্তার, সংস্কৃতিকর্মী লুবনা মারিয়াম, মাসুদ খান, নৃ-বিজ্ঞান গবেষক রেহনুমা আহমেদ, অ্যাডভোকেট এ এ জিয়াউর রহমান ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

রিটে আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনাল) আইন’১৯৭৩ এর ১১(৪) ও ২১ ধারা দু’টি ধারায় বর্ণিত আদালত অবমাননাকারীদের আপিলের অধিকার নিশ্চিত না করাকে কেন অসাংবিধানিক ঘোষণা করা হবে না- সে মর্মে রুল চাওয়া হয়েছিল। একই সঙ্গে ট্রাইব্যুনাল-২ এর আদালত অবমাননার মামলাটি স্থগিত করার আবেদন জানানো হয়েছিল।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই