মেইন ম্যেনু

২০২১ সালের মধ্যে জিএসপি প্লাস সুবিধা পাবো

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ‘খুব শিগগিরই আমরা জিএসপি সুবিধা পাবো। তবে ২০২১ সালের মধ্যে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়ে জিএসপি প্লাস সুবিধা ভোগ করবো।’

সম্প্রতি ব্রাসেলসে তৈরি পোশাক খাত, নিরাপদ কর্ম পরিবেশ ও সমঅধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘সাসটেইনেবিলিটি কম্প্যাক্ট’র পর্যালোচনা সভা শেষে দেশে ফিরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় মন্ত্রী জানান, এই সভায় শ্রম আইন সংশোধন, ২০০ জন ইন্সপেক্টর নিয়োগ, ইপিজেড আইন সংশোধন, সাধারণের প্রবেশযোগ্য ডাটাবেজ স্থাপন, রপ্তানিমুখি গার্মেন্টস কারখানা যাচাই-বাছাই, ট্রেড ইউনিয়ন রেজিস্ট্রেশন প্রদান, শ্রমিক হয়রানি বন্ধ করা ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘তারা আমাদেরকে শ্রম আইনের বিধিমালা ও ইপিজেড আইন সংশোধনের বিষয়ে বলেছে। আমি তাদেরকে জানিয়েছি ইপিজেডের ব্ল্যাক লিস্টিং বন্ধ করাসহ সেখানে ডব্লিউডব্লিউএ কর্তৃক সিবিএ করার অধিকার প্রদান করা হয়েছে। এই আইনটি এতোটুকু পর্যন্ত ফুলস্টপ থাকবে। এ আইনে আর কোনোকিছু করা হবে না এটা আমি তাদের স্পষ্ট জানিয়েছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘শ্রম আইন বিধিমালা ডিসেম্বরের মধ্যে করার জন্য তারা আমাকে তাগিত দিয়েছে। এ বিষয়ে আমি তাদের জানিয়েছি, ডিসেম্বরের মধ্যে করা সম্ভব হবে কি-না আমরা এ বিষয়ে নিশ্চিত নই। তবে দ্রুত করা হবে।’ আগামী ৩০ অক্টোবর এই লক্ষ্যে সব স্টোকহোল্ডারদের নিয়ে শ্রম মন্ত্রণালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘বৈঠকে তারা বাংলাদেশের কারখানাগুলোর কর্ম পরিবেশ এবং শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ও ইউনিয়নের বিষয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। তবে যেসব ছোটখাটো সমস্যা রয়েছে সেগুলে সমাধানের জন্য আমাদের বলেছে।’

উল্লেখ্য, রানা প্লাজার দুর্ঘটনার পর তৈরি পোশাকশিল্প খাতের নিরাপদ কর্ম পরিবেশ ও শ্রম অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে গেল বছর ৮ জুলাই ‘সাসটেইনেবিলিটি কম্প্যাক্ট’ গঠন করা হয়। ২০ অক্টোবর ব্রাসেলসে এর দ্বিতীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৫ সালের সুবিধাজনক সময়ে এর পরবর্তী সভা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা যায়।

ব্রাসেলসের ওই বৈঠকে ইইউ, ইউএস, আইএলও, বিভিন্ন দাতা সংস্থা, উৎপাদনকরী রিটেইলার, ট্রেড ইউনিয়ন ও সিভিল সোইসাইটির প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করে।  প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ২০ অক্টোবর বাণিজ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে ১২ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ থেকে এই সভায় যোগ দেয়। বৈঠক শেষে ২২ অক্টোবর তারা দেশে ফিরে আসে।






মন্তব্য চালু নেই