মেইন ম্যেনু

হজের টাকা জমার সময় বাড়ানোর সুপারিশ

হজের টাকা জমা দেয়ার সময় বাড়ানোর সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। যদিও মন্ত্রিসভায় ২০১৫ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে আগেই।
এই সময়সীমার মধ্যে টাকা জমা দেয়া কঠিন হবে বলে সাধারণ মানুষের মধ্যে এক ধরনের হতাশা সৃষ্টি হয়েছে। তাই সময়সীমা বাড়ানো যায় কি না তা নিয়ে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সংসদীয় কমিটি বসবে বলে জানিয়েছেন কমিটি সদস্য সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী।
রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে এ কথা জানান তিনি। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি বজলুল হক হারুন।
নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী বলেন, ‘যেহেতু মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে, তাই সেটাতো আর পরিবর্তন করার ক্ষমতা আমাদের নেই। তবে আমরা প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করবো আর একটু সময় বাড়ানো যায় কি না।’
ওয়াকফ সম্পত্তি সম্পর্কে এ সদস্য বাংলামেইলকে বলেন, ‘প্রায় ১ লাখ একর ওয়াকফ সম্পত্তি বেহাত হয়ে আছে। তালিকা অনুযায়ী ২০ হাজার ওয়াকফ স্টেট থাকলেও এর মধ্যে ৫ হাজারে কোনো কার্যক্রম নেই। এসব ওয়াকফ সম্পত্তি দখলে আনতে সাব কমিটি গঠন করা হয়েছে।’ তিনি জানন, এক জরিপে দেখা গেছে প্রায় ৯০ শতাংশ ওয়াকফ স্টেটই অবৈধ দখলে।
হজের ফ্লাইটএদিকে সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, ওয়াক্ফ সম্পত্তি দিয়ে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরিচালনার জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।
এছাড়া মিরপুরের শাহ আলী মাজার সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরিচালনার জন্য ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন করে দেয়ার জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিবকে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।
সারাদেশের ওয়াকফ স্টেট সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ ও সুপারিশ প্রণয়নের জন্য সংসদ সদস্য সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারীকে আহ্বায়ক এবং সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লা ও সংসদ সদস্য সাধন চন্দ্র মজুমদারকে সদস্য করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি সংসদীয় সাব-কমিটি গঠন করা হয়।
মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলোতে ওয়াক্ফ সম্পত্তির ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়ন সম্পর্কে ধারণা লাভের জন্য সংসদীয় কমিটি ওইসব দেশের ওয়াক্ফ কার্যক্রম পরিদর্শনের চিন্তাভাবনা করছে। ওইসব দেশের ব্যবস্থাপনার আলোকে কীভাবে এদেশের বাস্তবতার সঙ্গে সমন্বয় ঘটিয়ে ওয়াকফ প্রশাসন পরিচালনা করা যায় সে বিষয়ে খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে।
বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন- কমিটি সদস্য ধর্ম মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, কমিটির সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লা, সাধন চন্দ্র মজুমদার, আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন, দিলারা বেগম, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব চৌধুরী মো. বাবুল হাসানসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই