মেইন ম্যেনু

স্ত্রীর হাতুড়ি পেটায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মৃত্যু

ঈশ্বরদীতে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে স্বামী হত্যার অভিযোগে শাহীনা আক্তার রোকসানা (৩৫) নামে এক গৃহবধূকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নিহত শাহানুর রহমান লিপু (৪৫) পেশায় একজন ঠিকাদার ও ঈশ্বরদী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি ছিলেন।

হত্যার সাতদিন পর পুলিশ সেফটিক ট্যাংক থেকে তার লাশ উদ্ধার করে।

লিপুর স্বজনরা জানান, লিপুর সাথে শাহীনার দীর্ঘ দিন ধরে পারিবারিক কলহ চলছিল। গত ১৫ জুলাই বিকেলে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। ওই দিন থেকেই লিপুকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়ায় পুলিশকে জানানো হয়। পরে পুলিশ সোমবার গভীর রাতে শাহীনাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি হত্যার কথা স্বীকার করেন।

লিপু-শাহীনার এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করে শাহীনা সাংবাদিকদের জানান, ওই দিন কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে লিপু তাকে বেদম মারধর করে। এসময় তাদের মেয়ে এগিয়ে এলে লিপু তাকে গলা টিপে হত্যার চেষ্টা করে। এসময় তিনি পেছন থেকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করেন এবং তাতে লিপুর মৃত্যু হয়।

শাহীনা আরও জানান, হত্যার পরও স্বামীর লাশ দুই দিন ঘরে লুকিয়ে রেখেছিলেন তিনি। এরপর নিজেকে বাঁচাতে ১৭ জুলাই বালির বস্তা দিয়ে লাশ বেঁধে বাড়ির সেফটিক ট্যাংকে রাখেন।

তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মঙ্গলবার সকালে লিপুর গলিত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ঈশ্বরদী থানার ওসি বিমান কুমার দাস বলেন, ‘লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ঈশ্বরদী থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই