মেইন ম্যেনু

সিনেমা কী করে সমাজের ক্ষতি করে, প্রশ্ন ইরফানের

প্রখ্যাত কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জীবনের সঙ্গে মিলে যাওয়ার অভিযোগে সেন্সর বোর্ডের প্রিভিউ কমেটি আটকে দিয়েছে মেধাবী নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘ডুব’ ছবিটি। এরপর থেকেই সিনেমাটি নিয়ে চলছে তর্ক বিতর্ক। আর এই বিতর্কে এবার মুখ খুললেন ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্র ও বলিউডের মেধাবী অভিনেতা ইরফান খান।

ফারুকীর ‘ডুব’ সিনেমায় অভিনয় করেছেন বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা ইরফান খান। ছবিতে তার চরিত্রের নাম জাভেদ হাসান। তিনি একজন চলচ্চিত্র নির্মাতার চরিত্রে অভিনয় করছেন। যিনি তার স্ত্রীকে ছেড়ে মেয়ের বান্ধবীকে বিয়ে করেন। যে অংশটা মিলে যায় দেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ও নির্মাতা হুমায়ূন আহমদের জীবনের সঙ্গে। আর এটা শুনেই ছবিটি নিয়ে আপত্তি তোলেন হুমায়ূনের দ্বিতীয় স্ত্রী শাওন! যার ফলে বাংলাদেশে মুক্তি আটকে যায় ‘ডুব’-এর।

ডুব আটকে যাওয়ায় গত প্রায় এক সপ্তাহ থেকেই বাংলাদেশে চলছে তুমুল আলোচনা সমালোচনা। ছবিটির মুক্তির পক্ষে বিপক্ষে অবস্থান নিচ্ছেন অনেকে। কেউ বলছেন শাওনের এমন আপত্তি হাস্যকর, অন্যদিকে অনুমতি না নিয়ে কারো উপর সিনেমা বানিয়ে ফেলাটাকেও ফারুকীর সঙ্গে যায় না বলে মন্তব্য করছেন অনেকে। আর এসব বিতর্ক নিয়ে এবার ভারতীয় গণমাধ্যমে কথা বললেন ইরফান খান।

শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যম মিড-ডে’তে প্রকাশিত হয়েছে ফারুকীর ‘ডুব’ সিনেমা নিয়ে একটি প্রতিবেদন। বাংলাদেশে এই ছবিটি নিষিদ্ধ করায় সে প্রতিবেদনে ভারতীয় নায়ক ইরফান খানের মন্তব্য নেয়া হয়েছে। যেখানে ইরফান বলেন, ‘ডুব’ নিষিদ্ধের ঘটনায় আমি বিস্মিত হয়েছি। এই সিনেমাটি মানুষের আবেগকে কেন্দ্র করে, একজন পুরুষ ও নারীর মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে তৈরি। একটি সিনেমা কী করে সমাজের ক্ষতির কারণ হয়?

যৌথ চলচ্চিত্রের নীতিমালা মেনে গত ১২ ফেব্রুয়ারি প্রিভিউ কমিটির কাছে জমা দেওয়া হয় ‘ডুব’। প্রিভিউ শেষে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি এক অনাপত্তিপত্রের মাধ্যমে ছাড় দেয় কমিটি। কিন্তু তার এক দিন পরই ১৬ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৫টায় এক আদেশে অনাপত্তিপত্রটি স্থগিত করা হয়।

ছবিতে ভারতীয় ইরফান খান ছাড়াও অভিনয় করেছেন দেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী তিশা, রোকেয়া প্রাচি, কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেতা ব্রাত্য বসু ও পার্ণো মিত্র।






মন্তব্য চালু নেই