মেইন ম্যেনু

শুক্রবার থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট

শুক্রবার থেকে আন্তঃনগর ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে। ঈদুল আজহা ও পূজা উপলক্ষে অগ্রিম টিকিট বিক্রি চলবে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

বৃহস্পতিবার রেলকর্তৃপক্ষ সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত চলবে টিকিট বিক্রি। প্রথম দিন ২৬ সেপ্টেম্বর বিক্রয় করা হবে ১ অক্টোবরের অগ্রিম টিকিট। রাজধানীর কমলাপুর ও চট্টগ্রাম রেলস্টেশন এই অগ্রিম টিকিট বিক্রয় করা হবে।

রেলওয়ে সূত্রে জানায়, এছাড়া ৩ অক্টোবর থেকে দেয়া হবে ফিরতি ট্রেনের অগ্রিম টিকিট। বরাবরের মত এবারো একজন যাত্রী চারটি টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে শুরু হবে টিকিট বিক্রয়। টিকিট থাকা সাপেক্ষে চলবে বিকেলে ৫টা পর্যন্ত।

এছাড়া অধিক যাত্রী বহন করতে এবাবও পাঁচ জোড়া বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ২৭ সেপ্টেম্বর বিক্রয় হবে ২ অক্টোবরের টিকিট, ২৮ সেপ্টেম্বর বিক্রয় হবে ৩ অক্টোবরের টিকিট, ২৯ সেপ্টেম্বর বিক্রয় হবে ৪ অক্টোবরের টিকিট, ৩০ সেপ্টম্বর বিক্রয় হবে ৫ অক্টোবরের টিকিট।

এবং আগামী ৩ অক্টোবর থেকে শুরু হবে রেলওয়ে ফিরতি অগ্রিম টিকিট বিক্রি। ৩ অক্টোবর বিক্রয় হবে ৭ অক্টোবরের ফিরতি টিকিট। ধারাবাহিকভাবে ১১ অক্টোবর পর্যন্ত ফিরতি অগ্রিম বিক্রি করা হবে।

এছাড়া ঈদের আগে পাঁচ দিন ও ঈদের পরের সাত দিন ‘ঈদ স্পেশাল ট্রেন সার্ভিসের’ মাধ্যমে বাড়তি সেবা দেয়া হবে। এ  সময় অতিরিক্ত ৭৭টি কোচ সংযোজন করা হবে। পাশাপাশি ঈদের তিন দিন আগে থেকে মোট পাঁচ জোড়া স্পেশাল ট্রেন চলবে। এর মধ্যে চট্টগ্রাম-চাঁদপুর রুটে দুই জোড়া এবং ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ, ঢাকা-পার্বতীপুর ও ঢাকা-খুলনা রুটে এক জোড়া করে ঈদ স্পেশাল ট্রেন চলবে বলে রেল বিভাগ সূত্রে জানায়।

এদিকে লঞ্চ মালিক সমিতির সূত্রে জানায়, ঈদুল আজহা ও পুজা উপলক্ষে ঢাকা থেকে বরিশাল রুটে লঞ্চে স্পেশাল সার্ভিস শুরু হবে আগামী ২ অক্টোবর থেকে। এবার ঢাকা থেকে বরিশার লঞ্চ যাত্রীদের সর্বনিন্ম ডেকের ভাড়া ধরা হয়েছে ২৫৫ টাকা।

এছাড়া সিঙ্গেল কেবিন নন এসির ভাড়া ধরা হয়েছে ১০০০ টাকা, এসি কেবিন সিঙ্গেল ভাড়া ১১৫০ টাকা, ডবল কেবিন নন এসি ভাড়া ২০০০ টাকা, এসি ভাড়া ২৩০০ টাকা।






মন্তব্য চালু নেই