মেইন ম্যেনু

ল্যাপটপ ব্যবহারে মানুষের জেনেটিক কোড পরিবর্তিত হয়ে যেতে পারে

ল্যাপটপ কোলের ওপর বা শরীরের কাছাকাছি রাখা স্বাস্থ্যের পক্ষে বেশ ক্ষতিকর, সম্প্রতি গবেষণা থেকে এটাই জানা গেছে। ল্যাপটপ এবং তার সঙ্গে ইন্টারনেটের ওয়াই ফাই রেডিয়েশন মানুষের শরীরে ভয়ানক প্রভাব ফেলতে পারে।

ক্যান্সার, ত্বকের সমস্যা এই ধরনের অসুখ হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে এই রেডিয়েশনের প্রভাবে। এর সঙ্গে সাম্প্রতিক এক গবেষণার ফল বলছে ওয়াই-ফাই প্রযুক্তির ল্যাপটপ ব্যবহারে শুক্রাণু সংখ্যা কমে যেতে পারে।

ল্যাপটপ ব্যবহারে যে গরম তৈরি হয় তাতে শরীরের ওপর ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে এবং তার সঙ্গে যদি ওয়াই-ফাই সিগিন্যাল থাকে ল্যাপটপে তবে ক্ষতিকর প্রভাবের মাত্রা দ্বিগুন হয়ে যায়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, ওয়াই-ফাই সিগনাল শরীরের উপর যে প্রভাব ফেলে তাতে সরাসরি দেহ কোষের ক্ষতি হয় এবং জেনেটিক কোডেও পরিবর্তন করতে পারে। গবেষকদের মতে, ওয়াই-ফাই প্রযুক্তি থেকে যে ইলেকট্রোম্যাগনেটিক তেজস্ক্রিয়া সৃষ্টি হয় এবং মানবশরীরে আসে এবং তার প্রভাবে ত্বকের বেশ কিছু পরিবর্তন হয় যেগুলি দীর্ঘস্থায়ী, অন্যদিকে এই প্রভাবে প্রায় ১০ শতাংশ ক্ষেত্রে সঠিক ভাবে ডিএনএ তৈরি করতে পারে না শুক্রানু। তাই ল্যাপটপের বদলে ডেস্কটপ কম্পিউটার ব্যবহার এবং ল্যাপটপ যতটা সম্ভব দূরে রেখে কাজ করা যায় ততই ভালো থাকবে আপনার শরীর।






মন্তব্য চালু নেই