মেইন ম্যেনু

শাহীনূরকে পিটিয়ে হত্যা

র‌্যাবের বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ, বিচারক প্রত্যাহার

র‌্যাবের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা নেয়ার নির্দেশ দেয়ার একদিন পরই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহারকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাক আহমেদ সাহ্দানী স্বাক্ষরিত এক আদেশের মাধ্যমে তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

জনস্বার্থে আদেশ জারি করা হয়েছে উল্লেখ করে আগামী ৮ জুন থেকে আদেশ কার্যকর হবে বলে পত্রে উল্লেখ করা হয়। এছাড়া পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত প্রত্যাহার আদেশ বহাল থাকবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মো. সারোয়ার আলম বলেন, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহারকে প্রত্যাহার করার আদেশের কপি আমরা পেয়েছি।

ব্যবসায়ী শাহনূর হত্যা মামলার বাদীপক্ষের প্রধান আইনজীবী মো. খায়রুল আলম বলেন, আমরা মনে করি র‌্যাবের বিরুদ্ধে আদেশ দেয়ার কারণেই বিচারকের আমলি ক্ষমতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। এ আদেশের একটি কপি আমাদের কাছেও আছে।

উল্লেখ্য, গত ২৯ এপ্রিল দুপুরে র‌্যাব-১৪ এর ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর এ জেড এম শাকিব সিদ্দিকীর নেতৃত্বে একটি দল বগডহর গ্রামের হাজী রহিস উদ্দিনের ছেলে শাহীনূরকে নবীনগরের বগডহর তার নিজ বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায়। এরপর তাকে নবীনগর থানায় হস্তান্তর না করে ভৈরব ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে শাহীনূরকে নির্মমভাবে পিটিয়ে জখম করা হয়। বেধড়ক পেটানোর কারণে একপর্যায়ে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

র‌্যাব ৩০ এপ্রিল নবীনগর থানায় মামলা দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠান। নির্যাতনে আহত শাহীনূর ব্রাহ্মণবাড়িয়া কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়লে ৪ মে কারা কর্তৃপক্ষ প্রথমে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে তার অবস্থা আরো বেশি খারাপ হতে থাকলে সদর হাসপাতাল থেকে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬ মে সকালে তার মৃত্যু হয়।

এই ঘটনায় নিহতের ভাই মেহেদী হাসান বাদী হয়ে গত ১ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগ দাখিল করেন। গত বুধবার (৪ এপ্রিল) ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বগডর গ্রামের শাহনূর আলম হত্যার ঘটনায় র‌্যাবসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) মামলা আমলে নিয়ে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহার। মামলায় র‌্যাব-১৪, ভৈরব ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর এ জেড এম শাকিব সিদ্দিক ও ওই ক্যাম্পের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. এনামুল হক, স্থানীয় কৃষ্ণনগর গ্রামের নজরুল ইসলাম (৫৮) ও আবু তাহের মিয়াকে (৪৫) সহ ১১ জনকে আসামি করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই