মেইন ম্যেনু

রিজার্ভ চুরি: একটি অস্বাভাবিক কোডের খোঁজ পেয়েছে তদন্তকারীরা

নিউ ইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় একটি অস্বাভাবিক কোড নম্বরের খোঁজ পেয়েছেন তদন্তকারীরা। মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা-এনএসএ এই কোড নম্বর খুঁজে পেয়েছে।

২০১৪ সালে সনি পিকাচারে সাইবার হামলার সময় প্রায় এধরনের কোড ব্যবহৃত হয়েছিল বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে মার্কিন দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমস।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির পেছনে নর্থ কোরিয়াকে সন্দেহ করছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে বাংলাদেশের ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার রিজার্ভ চুরির ঘটনা ঘটে। এর বেশিরভাগটাই শেষ পর্যন্ত গিয়েছিল ফিলিপিন্সের বিভিন্ন ক্যাসিনোতে। নানা পদক্ষেপের পর অল্প কিছু উদ্ধার হলেও বেশির ভাগ অর্থই উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

এ ঘটনায় নর্থ কোরিয়া সরকারের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল আইনজীবীরা মামলা দাঁড় করাচ্ছেন। ফেডারেল আইনজীবীদের বিশ্বাস, চীনা দালালরা বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ লুট করতে পিয়ংইয়াংকে সাহায্য করেছে।

এই মামলাটি দায়ের হলে শুধু নির্দিষ্ট কয়েকজন নর্থ কোরীয় কর্মকর্তা নন, পুরো দেশটাই জড়িয়ে যাবে।

এই মামলার পাশাপাশি ফেডারেল রিজার্ভ পর্যায়ে দালালি ব্যবস্থায় নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথাও ভাবছে মার্কিন কোষাগার।

মার্কিন জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনএসএ’র উপ-পরিচালক রিচার্ড লেজেট জানান, ধারণা করা হচ্ছে রিজার্ভ চুরির সঙ্গে নর্থ কোরিয়ার সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে। এরপরই এফবিআইয়ের মামলা করার পরিকল্পনাটি প্রকাশ পেল।

বেসরকারি কিছু অনুসন্ধানী সংস্থাও বহুদিন ধরে দেশটির জড়িত থাকার বিষয়ে সন্দেহ করে আসছে।






মন্তব্য চালু নেই