মেইন ম্যেনু

যে চারটি কাজ করলে চুলপড়া একদম বন্ধ হয়ে যাবে

আজকার ছেলে এবং মেয়ে উভয়ই চুলপড়া সমস্যায় ভোগে। তবে মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের চুল ঝড়ে যাওয়ার হার অনেক বেশি। ফলে অনেক পুরুষের কম বয়সেই চুল হারিয়ে মাথা টাক হয়ে যায়। কিন্তু এই সমস্যা থেকে মাত্র চারটি কাজ করলেই ইনশাল্লাহ রক্ষা পাওয়া সম্ভব।

চলুন তবে জেনে নিই চুলপড়া থেকে মুক্তি ও নতুন চুল গজানোর কিছু টিপস।

১। মেহেদী এবং সরিষার তেলের হেয়ার মাস্ক:
এই মাস্কটি তৈরি করতে লাগবে মেহেদী পাতা ১০০ গ্রাম এবং সরিষার তেল ২৫০ গ্রাম। একটি প্যানে সরিষার তেল ঢেলে গরম হতে দিন। এরপর এতে মেহেদী পাতাগুলো দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিন। ৫-৭ মিনিট ফুটিয়ে চুলা থেকে নামিয়ে তেল ঠাণ্ডা হতে দিন। মেহেদী পাতা ছেঁকে নিয়ে এই তেল চুলের গোঁড়ায়, মাথার ত্বকে ভালো করে লাগান। ১ ঘণ্টা বাদে চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। বেঁচে যাওয়া বাকি তেলটুকু বোতলে ভরে রেখে দিন। এই মাস্কটি প্রতিদিন ব্যবহারে ভালো ফল পাবেন।

২। অলিভ অয়েল, মধু ও দারুচিনির হেয়ার মাস্ক:
চুলের ঘনত্ব ও দৈর্ঘ্য অনুযায়ী অলিভ অয়েল গরম করে নিন। এরপর এতে ১-২ চা চামচ মধু এবং ১ চা চামচ দারুচিনি গুঁড়ো দিয়ে খুব ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই হেয়ার মাস্ক চুলের গোঁড়ায় মাথার ত্বকে ভালো করে লাগান। ১৫-২০ মিনিট চুলে রাখুন। এরপর শ্যাম্পু করে চুল ধুয়ে ফেলুন। এতে চুলের গোঁড়া মজবুত হবে এবং টাক পড়ার সম্ভাবনা একেবারেই কমে যাবে।

৩। নিমপাতার ব্যবহার
৩ থেকে ৪ গ্লাস পানি নিয়ে এতে ১০ থেকে ১২ টি নিম পাতা ফুটতে দিন। পানি ফুটে অর্ধেক হয়ে এলে চুলা থেকে নামিয়ে ছেঁকে নিন। এই পানি ঠাণ্ডা হলে চুল ধোয়ার কাজে ব্যবহার করুন। সপ্তাহে দুবার ব্যবহারে ভালো ফল পাবেন।

৪। জবা ফুল ও লেবুর রসের হেয়ার মাস্ক
১ গ্লাস পানি একটি পাত্রে নিয়ে ফুটতে দিন। পানি ফুটে উঠলে এতে ২ টি জবাফুল দিয়ে ৩ থেকে ৪ মিনিট আরো ফুটিয়ে নিন। এরপর পানি ঠাণ্ডা হতে দিন। পানি ঠাণ্ডা হয়ে এলে ছেঁকে নিয়ে এতে কএয়ক ফোঁটা লেবুর রস দিয়ে মিশিয়ে নিন। চুল শ্যাম্পু করে ধোয়ার পর এই মিশ্রণটি যেখানে টাক পড়া শুরু করেছে সেখানে লাগিয়ে রাখুন। জবা ফুলের রস নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে।






মন্তব্য চালু নেই