মেইন ম্যেনু

মহানবমীতেই দশমীর বিসর্জন

পঞ্জিকা মেনে এক দিন আগেই হয়ে গেল উমা বিদায়। কলকাতার বাগবাজার ঘাটে হয়ে গেছে শোভাবাজার বড় ও ছোট রাজবাড়ির প্রতীমা বিসর্জন। পঞ্জিকা মেনে নবমীতেই দশমীর বিসর্জন হয়ে গেল গিরিশ পার্কের দাঁ বাড়িতেও।
পঞ্জিকা মানতে গিয়ে মাত্র তিন দিনেই বাপের বাড়ি ছেড়ে মেয়ে চললেন কৈলাসে। উৎসব শেষে আকাশে বাতাসে বিষাদের সুর।
মেয়ে ফিরবে শ্বশুরবাড়ি। তার যাওয়ার খবর স্বামীকে পৌঁছে দেবে নীলকণ্ঠ পাখি। এই বিশ্বাস থেকেই নীলকণ্ঠ পাখি ওড়ানোর প্রথা। কিন্তু নীলকণ্ঠ পাখি ধরা এখন নিষিদ্ধ। তাই মাটির নীলকণ্ঠ উড়ানো হলো।
বিদায় বেলায় রীতি মেনে শোভাবাজার বড় ও ছোট রাজবাড়িতে হয় তলোয়ার পূজা। তারপর রূপার রেকাবে মাকে নিবেদন করা হয় ধান, সোনার মোহর ও সিঁদুর। কনকাঞ্জলির পর সিঁদুর দান।
দুপুরে বাগবাজার ঘাটে প্রথমে শোভাবাজার বড় রাজবাড়ির প্রতীমা নিরঞ্জন। দুটি নৌকার মাঝখানে পাটাতনে চাপিয়ে প্রতীমা নিয়ে যাওয়া হয় মাঝগঙ্গায়। তারপর পাটাতন সরিয়ে বিসর্জন দেয়া হয় প্রতিমা। একই পদ্ধতিতে ছোট রাজবাড়ির বিসর্জনও।
নবমীতেই বিসর্জনের সাক্ষী থাকতে বাগবাজার ঘাটে উপস্থিত ছিলেন বহু মানুষ।






মন্তব্য চালু নেই