মেইন ম্যেনু

ব্লাসফেমি আইনের দাবিতে তিন মাসব্যাপী কর্মসূচি

ধর্ম অবমাননাকারীদের কঠোর শাস্তির বিধান রেখে আইন (ব্লাসফেমি আইন) করার দাবিতে টানা তিন মাসব্যাপী কর্মসূচি ষোষণা করেছে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস।

এ কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ১৫ জানুয়ারি থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত আলোচনা সভা, গণস্বাক্ষর, মিছিল এবং সম্মেলন।

শুক্রবার খেলাফত মজলিসের ৫ম অধিবেশে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলের মহাসচিব মুফতি মাহফুজুল হক। প্রতি তিন বছর অন্তর এ অধিবেশন করে দলটি।

ঘোষিত কর্মসূচি অনুসারে ১৫ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সীরাতুন্নবী পালন করা হবে। সাধারণ মানুষের সর্মথনে ২০ থেকে ১২ মার্চ পর্যন্ত গণস্বাক্ষর অভিযান চলবে। ১৩ মার্চ সারা দেশে থানায় থানায় বিক্ষোভ এবং ২৮ মার্চ ঢাকায় ওলামা মাশায়েখ সম্মেলন।

দলের মহাসচিব মুফতি মাহফুজুল হক বলেন, বাংলাদেশে নাস্তিক বিরোধী আইন বাংলাদেশে করতেই হবে। এদেশের মানুষের চাহিদা পূরণ করতে হলে একমাত্র ব্যবস্থা খেলাফত। এজন্য আমাদের আন্দোলন করে যেতে হবে।’

দলের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বলেন, ‘নাস্তিক্যবাদীদের উত্থান মেনে নেয়া হবে না। লতিফ সিদ্দিকীর শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। ইসলামী আন্দোলনে বিভক্তি চলছে। আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দাবি আদায়ে সবাইকে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে।’

দলটির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক আবু সাঈদ নোমান ইসলাম নিয়ে কটূক্তিকারীদের মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে আইন পাসসহ ৬টি প্রস্তাব তুলে ধরেন। প্রস্তাবে তিনি তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ এর দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত স্থগিতের দাবি জানান।

শুক্রবার অধিবেশনের ১ম পর্ব সকাল-৯টায় শুরু হয়। সেখানে সারাদেশ থেকে আগত ডেলিগেটরা মতামত তুলে ধরেন। আগামী দিনের করণীয় বিষয়ে তাদের পরামর্শ তুলে ধরেন।

২য় পর্বে বিকেল ৩টায় সবার জন্য উন্মুক্ত আলোচনায় দেশের আলেম-ওলামা, ইসলামি দলগুলোর নেতা, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক ও কলামিস্টরা বক্তব্য দেন। এ অধিবেশন উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের সিনিয়র সহসভাপতি ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের অভিভাবক পরিষদের চেয়ারম্যান শায়খুল হাদীস আল্লামা আশরাফ আলী। সভাপতিত্ব করেন দলের আমির প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবীবুর রহমান।

অধিবেশনে আরো বক্তব্য দেন- নায়েবে আমীর মাওলানা ইউসুফ আশরাফ, মাওলানা নিজামুদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক কোরবান আলী, কেন্দ্রীয় সমাজকল্যান সম্পাদক মাওলানা মাহবুবুল হক, বায়তুল মাল সম্পাদক আতাউল্লাহ আমিন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ফয়েজ আহমদ, কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আবদুল আজীজ, মাওলানা এনামুল হক নূর, বদিউজ্জামান, মাওলানা হারুন অর রশিদ প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই