মেইন ম্যেনু

বেতন দ্বিগুণ করার সিদ্ধান্তে মুদ্রাস্ফীতি বাড়ার আশংকা

আগামী জুলাই থেকে এক লাফে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন দ্বিগুণ করার ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। জাতীয় বেতন কমিশন রোববার তার কাছে বেতন একশো ভাগ বাড়ানোর সুপারিশ করার পর অর্থমন্ত্রী এ এম এ মুহিত বলেছেন, জুলাই মাস থেকে সরকার তা বাস্তবায়ন করবে।

দেশে সরকারি-আধা সরকারি এবং স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলোর অন্তত ১৩ লাখ কর্মকর্তা-কর্মচারি এর সুফল পাবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

রোববার সকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের কাছে বেতন বৃদ্ধির সুপারিশ পেশ করেন বেতন কমিশনের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দীন।

সংবাদদাতারা বলছেন, প্রস্তাবে সর্বনিম্ন বেতন স্কেল ৮,২০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ বেতন স্কেল প্রস্তাব করা হয়েছে ৮০ হাজার টাকা।

এছাড়া কেবিনেট সচিব ও মুখ্য সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তারাদের এক লাখ টাকা সম্মানি দেবার সুপারিশও করা হয়েছে প্রস্তাবে।

সরকারি চাকুরীজীবীরা এখন সর্বন্মিন ৪ হাজার ১শ এবং সর্বোচ্চ চল্লিশ হাজার টাকা বেতন পেয়ে থাকেন।

সরকারি কর্মচারীরা খুশি
বেতন বৃদ্ধির এই সিদ্ধান্তে স্বভাবতই সরকারি কর্মচারিরা খুশি।

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানির পরিবার কল্যাণ সহকারী কানিজ আফরোজ বললেন, “আমি খুবই খুশি। কারণ সবাই তো চায় বেতন বাড়ুক। বিশেষ করে জিনিসপত্রের দাম যেভাবে বেড়েছে, বেতন বাড়ায় এখন আমরা একটি লাভবান হবো।”

আওলাদ হোসেন নামে আরেকজন সরকারি কর্মচারী বলছিলেন, বর্তমান বেতনে তারা আর সংসার চালাতে পারছেন না। “আমরা খুব কষ্টে আছি। যে বেতন পাই তা দিয়ে চলে না, একটা ভালো বাসায় থাকতে পারি না, বাজার খরচ কুলাতে পারি না।”

মূদ্রাস্ফীতির আশংকা
কিন্তু এক লাফে একশো ভাগ বেতন বাড়ানোর এই সিদ্ধান্তের কী প্রভাব পড়বে বাংলাদেশের সার্বিক অর্থনীতিতে?

সরকারের এই সিদ্ধান্তের একটা প্রত্যক্ষ ফল হতে পারে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়া, বলছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক এম এম আকাশ।

“২০১০-১১ সালে বাংলাদেশে মূদ্রাস্ফীতি ছিল ১১ শতাংশ। এরপর কমতে কমতে সেটা সাত শতাংশ নেমেছে। চলতি অর্থবছরের মূদ্রাস্ফীতির হার এখনো জানা যায়নি। সরকার একটা যুক্তি দিতে পারে যে একটা কম মূদ্রাস্ফীতির মধ্যে তারা এই বেতন বৃদ্ধির সিদ্ধান্তটা নিচ্ছেন। কাজেই মূদ্রাস্ফীতি বাড়লেও খুব বেশি বাড়বে না।”

এম এম আকাশ বলেন, মূদ্রাস্ফীতির অবস্থা কি দাঁড়াবে সেটা নির্ভর করবে সরকার এই বেতন বৃদ্ধির অর্থটা কোত্থেকে জোগান দেয় তার ওপর।

“সরকার যদি ব্যাংক ঋণ নিয়ে বা নোট ছাপিয়ে এই বাড়তি বেতন জোগান দেয়, তাহলে নিশ্চিতভাবেই মূদ্রাস্ফীতির ওপর এর প্রভাব পড়ব।”

তিনি আরও বলেন, সরকারের এই সিদ্ধান্তের ফলে এখন বেসরকারি খাতের ওপরও বেতন বৃদ্ধির জন্য চাপ বাড়বে। সেটা যদি হয়, তখন মূদ্রাস্ফীতির হার আবারও দুই অংকের ঘরে পৌঁছে যেতে পারে। – বিবিসি






মন্তব্য চালু নেই