মেইন ম্যেনু

বখাটের বিরুদ্ধে নিজেই মামলা করলেন বিচারক

এক স্কুলছাত্রীর শ্লীলতাহানি করে নিজের কুকর্ম ঢাকতে আদালতে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা করতে গিয়ে ফেঁসে গেছে এক বখাটে। তার নাম রেজাউল চৌধুরী। আদালতের বিচারক সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ওই বখাটের মামলা না নিয়ে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে উল্টো তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। বিচারকের নির্দেশে বখাটে রেজাউল এখন কারাগারে।

মঙ্গলবার দুপুরে ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ ঘটনা ঘটে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, এ বছরের জানুয়ারি মাসে ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার এক এলাকায় বোরকা পরিহিত এক স্কুলছাত্রীর পথরোধ করে তাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে তার বোরখা খুলে শ্লীলতাহানি করে কয়েক যুবক।এতেই থামেনি তারা। ঘটনাটি ভিডিও করে ফেসবুকে ছড়িয়ে দিলে তা ভাইরাল হয়।

ওই ভিডিওটিতে দেখতে পাওয়া শ্লীলতাহানিকারী যুবকের পরিচয় নিশ্চিত হয়ে কয়েকটি গণমাধ্যমে তার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে গণমাধ্যমগুলোর স্থানীয় ৪ সাংবাদিকের ওপর ক্ষিপ্ত হয় অভিযুক্ত বখাটে নলছিটি উপজেলার নান্দিকাঠী গ্রামের মো. রেজাউল চৌধুরী। ভিডিওতে প্রকাশ্য চেহারা থাকার পরেও মঙ্গলবার দুপুরে ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৪ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করতে আসে সে।

কিন্তু ঘটনাটি ফেসবুকের মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় তা আগে থেকেই অবগত ছিলেন বিচারক এইচ এম কবির হোসেন। ফলে রেজাউলের উদ্দেশ্যমূলক মামলাটি গ্রহণ না করে উল্টো তার বিরুদ্ধেই স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৯০ (১) (সি) ধারা অনুযায়ী দণ্ডবিধির ২৯৫ এ/৩৫৪/৫০৬/৫০৯ ধারায় অপরাধ আমলে নিয়ে মামলা (নং ৪১১৭/১৭) দায়ের করেন এইচ এম কবির হোসেন এবং অভিযুক্ত রেজাউলকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।






মন্তব্য চালু নেই