মেইন ম্যেনু

ফিরোজার বাসায় যাবেন খালেদা

উপমহাদেশের প্রখ্যাত নজরুল সঙ্গীত শিল্পী ফিরোজা বেগমের শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে তার ইন্দিরা রোডের বাসায় যাবেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।
খালেদা জিয়ার প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার জানিয়েছেন, বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় বেগম খালেদা জিয়া সদ্য প্রয়াত ফিরোজা বেগমের শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে ৩৬ ইন্দিরা রোডের বাসায় যাবেন।
উল্লেখ্য, কিংবদন্তী শিল্পী ফিরোজা বেগম মঙ্গলবার রাত সোয়া ৮টার দিকে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে ৮০ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
বুধবার সকাল ৯টায় তার মরদেহ ইন্দিরা রোডে নিজ বাসায় নেয়া হয়। এরপর দুপুর ২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাখা হয় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য। বিকেলে গুলশান আজাদ মসজিদে নামাজে জানাজা শেষে তাকে দাফন করা হচ্ছে বনানী কবরস্থানে।

## শেষ শ্রদ্ধা জানাতে ফিরোজা বেগমের মরদেহ শহীদ মিনারে:
কিংবদন্তি শিল্পী ফিরোজা বেগমের প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য মরদেহ বেলা দুইটা থেকে তিনটা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাখা হচ্ছে। সকালে হাসপতালের হিমঘর থেকে মরদেহ বাসায় নেয়া হয়। ফিরোজা বেগমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। পশ্চিমবঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন।

## ফিরোজা বেগমের মৃত্যুতে শত নাগরিক ও উদীচীর শোক:
উপমহাদেশের কিংবদন্তি শিল্পী কবি নজরুলের স্নেহধন্য ফিরোজা বেগমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বুদ্ধিজীবীদের সংগঠন শত নাগরিক। বুধবার এক শোক বার্তায় ফিরোজা বেগমের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়।
অপরদিকে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীও অনুরূপ শোক প্রকাশ করেছে।
শত নাগরিকের আহ্বায়ক রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ ও সদস্য সচিব কবি আবদুল হাই শিকদার স্বাক্ষরিত শোকবার্তায় বলা হয়, ‘ফিরোজা বেগম উপমহাদেশের সংগীত জগতে বিশেষ করে নজরুল সংগীতের পথিকৃত শিল্পী ছিলেন। নজরুল সংগীতকে জনপ্রিয় করার ক্ষেত্রে তার অবদান জাতি চিরদিন স্মরণ করবে। ফিরোজা বেগমের মৃত্যুতে জাতি একজন প্রতিভাবান ও বরেণ্য শিল্পীকে হারালো। এ ক্ষতি অপূরণীয়।’
এই প্রতিভাবান শিল্পীর স্মৃতি, সঙ্গীত সাধনা ও কর্মময় জীবনকে ধরে রাখতে উদ্যোগী হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সব মহলের প্রতি আহ্বান জানায় শত নাগরিক কমিটি।
ফিরোজা বেগমের মৃত্যুতে শত নাগরিকের পক্ষে আরো শোক জানানযুগ্ম আহ্বায়ক বিচারপতি আবদুর রউফ, প্রফেসর ড. মাহবুব উল্লাহ, সদস্য অধ্যাপক ডা. এম এ মাজেদ, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, অধ্যাপক ড. খন্দকার মোস্তাহিদুর রহমান, অধ্যাপক ড. আ. ফ. ম ইউসুফ হায়দার, অধ্যাপক ড. সদরুল আমিন, অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম, প্রমুখ।
বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি কামাল লোহানী ও সাধারণ সম্পাদক প্রবীর সরদার এ শোক বাতায় বলেন, ‘জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কাছে সরাসরি সঙ্গীত শিক্ষা নেয়া ফিরোজা বেগম সাত দশকেরও বেশি সময় ধরে উপমহাদেশের কোটি সঙ্গীতপ্রেমীর কাছে নজরুল গীতির সুর ও মাধুর্য্য পৌঁছে দিয়েছেন। সঠিক সুর ও তালে, অনবদ্য গায়নশৈলীর সংমিশ্রণে তার গাওয়া একেকটি গান শ্রোতাদেরকে বারবারই মন্ত্রমুগ্ধ করেছে। নজরুল সঙ্গীতের প্রতি আজীবন অনুগত থেকে যে অসাধারণ একাগ্রতার পরিচয় দিয়েছেন ফিরোজা বেগম, তা নতুন প্রজন্মের শিল্পীদের কাছে অনুকরণীয়।তার মৃত্যুতে সঙ্গীত জগতে যে শূন্যতা তৈরি হয়েছে তা কখনোই পূরণ হবার নয়।






মন্তব্য চালু নেই