মেইন ম্যেনু

পবিত্র লাইলাতুল কদর আজ

আজ ২৬ রমজান। দিনের শেষে আসন্ন রাতটি ২৭ রমজানের রাত হিসেবে পরিচিত। হাদিস শরীফের বর্ণনা অনুযায়ী আজকের রাতটি পবিত্র লাইলাতুল কদর হওয়ার সম্ভাবনা অধিক। তবে রমজানের শেষ দশকের সব বেজোড় রাত গুলোতেই শবে কদর খোঁজ করতে হাদিস শরিফে বলা হয়েছে।

হাজার রাতের চেয়ে শ্রেষ্ঠ পবিত্র লাইলাতুল কদর আজ। মহিমান্বিত এই রজনীতে মহান আল্লাহ্তায়ালা পবিত্র কুরআন অবতীর্ণ করেন। হেরা গুহায় ধ্যানরত রাসূলে পাক (সাঃ)-এর কাছে প্রথম পৌঁছান মুক্তির বাণী ‘ইকরা বি ইসমি রাব্বিকাল্লাজি খালাক’। এই রাতের মহিমা বর্ণনা করতে গিয়ে কুরআন শরিফে সূরা কদরে স্বয়ং আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিন বলেছেন, ‘লাইলাতুল কাদরি খাইরুম মিন আলফি শাহ্র’। অর্থাৎ হাজার মাসের চেয়ে সর্বোত্তম এই রাত।

এ রাতে শেষ আসমানে এসে আল্লাহ্পাক তার বান্দাদের উদ্দেশে বলতে থাকেন, তোমাদের মাঝে এমন কে আছো, যে আমার কাছে নাজাত চাও? কল্যাণ চাও? তোমাদের মধ্যে কে আছো, যে মুক্তি চাও?

সূরা কদরে মহান আল্লাহ বলেন, “নিশ্চয়ই আমি তা (কোরআন) অবতীর্ণ করেছি কদরের রাতে। আর কদরের রাত সম্বন্ধে তুমি কি জানো? কদরের রাত হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ। সে রাতে ফেরেশতারা ও রুহ অবতীর্ণ হয়, প্রত্যেক কাজে তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে। শান্তি আর শান্তি বিরাজ করে উষার আবির্ভাব পর্যন্ত”। (সূরা আল-কদর, আয়াত ১-৫)

আল্লাহ্র এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে রহমত, বরকত ও মাগফিরাত লাভের আশায় লাইলাতুল কদরে মুসলমানরা আজ সারা রাত ইবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে কাটাবেন। এ উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ অ্যাডভোকেট, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিএনপি চেয়ারম্যান বেগম খালেদা জিয়া বাণী দিয়েছেন।

পৃথক বাণীতে তারা দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং মুসলিম উম্মাহ্ ও দেশের শান্তি, সমৃদ্ধি ও মঙ্গল কামনা করেছেন।

লাইলাতুল কদরে বিভিন্ন স্থানে ওয়াজ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। সব মসজিদে হবে তারাবি’র নামাজে কোরানের খতম। এ জন্য মসজিদগুলোতে বিশেষ দোয়ারও আয়োজন করা হয়েছে।

মাহে রমজানের কোন রাতটি লাইলাতুল কদর হবে তা নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। তবে রাসূল পাক (সাঃ) রমজানের শেষ ১০ দিনের বেজোড় রাতে মর্যাদাবান রজনীর পুণ্য খুঁজতে বলেছেন। বেশির ভাগ আলেম-ওলামা ২৬ রমজানের দিবাগত রাতকেই লাইলাতুল কদর বলে উল্লেখ করেছেন। সে জন্য এ রাতকেই বিশ্বের মুসলমানরা লাইলাতুল কদর হিসেবে পালন করে থাকেন।






মন্তব্য চালু নেই