মেইন ম্যেনু

অগ্নিদগ্ধ মা ও ভাইও যেন পিছু ছাড়ছে না

‘না ফেরার দেশে’ চলে গেলো কলেজ শিক্ষকের অগ্নিদগ্ধ শিশুপুত্র

সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলো সাতক্ষীরার কলারোয়ায় কলেজ শিক্ষকের অগ্নিদগ্ধ শিশুপুত্র তামিম। মঙ্গলবার রাত ৮টা ২৫মিনিটের দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তামিম মারা যান। উপজেলার লাঙ্গলঝাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেনির ছাত্র তামিম আসাদ (৬) আর দুরন্তপনা করবে না বন্ধুদের সাথে। টানা ৬দিন চরম যন্ত্রনাভোগের পর মৃত্যুর কাছে পরাজিত হতে হলো তাকে। গত ৯অক্টোবর বৃহষ্পতিবার গভীর রাতে উপজেলার লাঙ্গলঝাড়া গ্রামের বাড়িতে কলারোয়ার শেখ আমানুল্লাহ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক খলিলুর রহমানের ঘুমন্ত পরিবারের উপর দূর্বৃত্তরা পেট্রোল ঢেলে অগ্নিসংযোগ করে। এঘটনায় খলিলুর রহমান (৪৫) সামান্য অগ্নিদদ্ধ হলেও শরীরের সিংহভাগ পুড়ে ঝলসে যায় স্ত্রী শাহানারা খাতুন ঝর্ণা (৩৫), দুই শিশু পুত্র তানভির আসাদ (১১) ও তামিম আসাদ (৬) এর। মারাত্মক ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় ওই দিনই ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে তাদের ভর্তি করা হয়। আশংকাজনক অবস্থায় টানা ৬দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে মা ও ভাইকে ফেলে না ফেরার দেশে চলে গেলো তামিম। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে এরিপোর্ট লেখার সময় শাহানারা খাতুন ও তানভির আসাদের অবস্থাও আশংকাজনক বলে জানা গেছে। সকলের দোয়া বিফল করে প্রিয়জনদের ছেড়ে চলে যাওয়ার সময়ও তামিমের মা ও ভাইও যেন তাকে পিছু ছাড়ছে না। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে অবস্থানরত কলারোয়া শেখ আমানুল্লাহ কলেজের উপাধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম জানান, বুধবার সকালে ময়না তদন্ত শেষে সামান্য আহত পিতা খলিলুর রহমান তার শিশুপুত্রের লাশ নিয়ে কলারোয়ায় ফিরবে। লাশ দাফন সম্পন্ন শেষে ছোট ছেলেকে চিরতরে রেখে চিকিৎসার জন্য আবারো তিনি আশংকাজনক অগ্নিদগ্ধ স্ত্রী ও বড় পুত্রের কাছে ঢাকা মেডিকেলে যাবেন।






মন্তব্য চালু নেই