মেইন ম্যেনু

নারীদের রাতেও কাজের পরিবেশ তৈরি করতে হবে

মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, নারীরা আজ সবক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে। পুরুষদের পাশাপাশি তারা কাজ করে চলেছে। তাই নারীদের শুধু দিনে নয় রাতেও কাজ করা ও নির্বিঘেœ চলাফেরার পরিবেশ তৈরি করতে হবে।

বুধবার দুপুরে মতিঝিলে এফবিসিসিআইয়ের ভবনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। উইমেন বিজনেস ডিরেক্টরি অব বাংলাদেশ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং এফবিসিসিআইয়ের পক্ষ থেকে নারী উদ্যোক্তা ও সম্প্রসারণ প্রকল্পের ট্রেনিং উপকরণ সামগ্রী বিতরণ শীর্ষক অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই।

মেহের আফরোজ চুমকি বলেন, আমাদের দেশে অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারী। তাই নারীদের আজ ঘরে বন্দি করে রাখলে চলবে না। মাথাপিছু আয়ে বাড়ার কিছুটা হলেও অবদান আছে নারীদের। আগে শুধু বাবা অথবা ভাই শুধু কাজ করতো এখন নারীরাও কাজ করছে। যার কারণে মাথাপিছু আয় বেড়েছে।

তিনি বলেন, নারীদের ব্যাপারে কোনো কথা বললে পুরুষরা মিটিমিটি হাসে। যে তারা কচ্ছপের মতো আর কি করবে। কিন্তু তারা আজ কচ্ছপের মতো ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছে। তাই নারী পুরুষ সমানতালে কাজ করবে। তাদের প্রতি ভালো আচরণ করবেন। কারণ তারাও মানুষ। নারীরা আজ সকল ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, নারীর প্রতি যে সহিংসতাগুলো হচ্ছে তা আজকের ঘটনা না। অনেক দিন আগ থেকেই নারী নির্যাতন চলে আসছে।

তিনি গারো তরুণীর ধর্ষণের বিষয়ে বলেন, গারো মেয়েটির ধর্ষণের চিত্র মিডিয়া দেয়নি। এই জন্য মিডিয়াকে ধন্যবাদ। আপনাদের প্রতি আহ্বান নির্যাতিত নারীর ছবি মিডিয়ায় দেবেন না।

নারীরা দিনে কাজ করতে পারলে রাতে কেন পারবে না। যারা নারী নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি কাজী আকরাম উদ্দীন আহমদ বলেন, বর্তমানে পোশাকখাতে বেশিরভাগই নারী। নারীদের কাজে লাগাতে না পারলে আমরা পোশাকখাতে বিশ্বে দ্বিতীয় হতে পারতাম না। দেশের উন্নয়নে নারীর ভূমিকা উল্লেখযোগ্য।

প্রকল্পের কার্যক্রম সম্পর্কে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন করেন এফবিসিসিআইয়ের প্রথম সহসভাপতি মনোয়ারা হাকিম আলী।

হাকিম আলী বলেন, বর্তমান সরকার নারীদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নারী উন্নয়নে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, এফবিসিসিআইয়ের অধীনে গত একমাসে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ৪০০ নারীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এতে তারা আত্মনির্ভরশীল হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

উল্লেখ্য, অনুষ্ঠানে ট্রেনিংপ্রাপ্ত ১০জন নারীকে (সেলাইয়ের ওপর ৫জন আর বিউটি পার্লারের ওপর ৫ জন) সেলাই মেশিন ও বিউটি পার্লার বক্স দেওয়া হয়।

কাজী আকরাম উদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট তারানা হালিম, এফবিসিসিআইয়ের সহসভাপতি মো. হেলাল উদ্দীন, কর্মসূচি পরিচালক ও মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপসচিব কফিল উদ্দীন কাইয়া, এফএনএফের কান্ট্রি রিপ্রেজেনটেটিভ ড. নাজমুল হোসাইনসহ নারী উদ্যোক্তারা।






মন্তব্য চালু নেই