মেইন ম্যেনু

দিনাজপুরের খবর (১৩/৬/১৪)

মাহমুদুল হক মানিক, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি :
## দিনাজপুরে বিদেশি পিস্তলসহ যুবক আটক
দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি: দিনাজপুর জেলার বোচাগঞ্জ উপজেলায় একটি বিদেশি পিস্তল, ২ রাউন্ড গুলিসহ এক যুবকে হাতেনাতে আটক করেছে র‌্যাব-১৩। বুধবার বিকালে বোচাগঞ্জ উপজেলা চত্বরে র‌্যাবের একটি দল উপজেলার ২নং ইউনিয়ন পরিষদের দেওগাঁও গ্রামের আবেদ আলীর পুত্র মোঃ জাহিদকে (১৮) ইউএসএ-এর তৈরি সেভেন পয়েন্ট সিক্স ফাইভ মিলিমিটার ১টি পিস্তল, ২ রাউন্ড তাজা গুলি ও ১টি ম্যাগজিন এবং ১টি মোটরসাইকেল ও ১টি মোবাইল সেটসহ তাকে আটক করে। অন্যান্যরা পালিয়ে যায়। অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে নেতৃত্ব দেন র‌্যাবের মেজর খালিদ ও এএসপি আসাদুজ্জামান। আটক জাহিদ র‌্যাবের হেফাজতে রয়েছে।

## ফুলবাড়ীতে কৃষককে জবাই করে হত্যা
দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে গত বুধবার রাতে দুবৃর্ত্তরা এক ব্যাক্তিকে জবাই করে হত্যা করেছে। নিহত ব্যাক্তি উপজেলার বেতদিঘী ইউপির খন্ডকুই গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিকের পুত্র আব্দুল কুদ্দুস (৩৮) তিনি পেশায় কৃষক ছিলেন। এলাকাবাসী ও ফুলবাড়ী থানা পুলিশ জানায়, গত বুধবার রাত সাড়ে ৮ টায় আব্দুল কুদ্দুস রাতের খাবার সেরে ওই গ্রামে একটি অনুষ্টানে যাওয়ার উদ্যেশে তার ফিরতে দেরী হতে পারে স্ত্রীকে এই কথা বলে বাড়ী থেকে বের হয়ে যায়। রাতে তিনি আর বাড়ী ফিরে আসেননি। পরদিন গত বৃহস্পতিবার সকালে তার বাড়ীর পূর্ব দিকে ক প্রায় ১ কিলোমিটার দুরে মাঠে গ্রামবাসী গলাকাটা অবস্থায় কুদ্দুসের পেড়ে থাকতে দেখে ফুলবাড়ী থানা পুলিশকে খবর দেয়।
খবর পেয়ে সক্লা সাড় ৭ টায় ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ রবিউল ইসলাম খাঁন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। পুলিশ মৃত কুদ্দুসের বন্ধু ও চাচাত ভাই কোবাদ হোসেনের পুত্র বুলবুল (২৮)কে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার সন্দেহে আটক করেছে। গ্রামবাসীরা বলছেল নিহত কুদ্দুস খুব সাদাসিদে ও বোকা ধরনের লোক ছিলেন। তিনি কোন রাজনৈতিক দলের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন না। তিনি সব সময় কৃষিকাজ নিয়েই ব্যাস্ত থাকতেন। কারো সঙ্গে তার বিরোধও ছিল না। দিনাজপুর জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেন ও সহকারী পুলিশ সুপার (ফুলবাড়ী সার্কেল) সুশান্ত সরকার গতকাল সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ রবিউল ইসলাম খানঁ জানান, তাদের ধারনা পারিবারিক কোন বিরোধ নিয়ে নিহতের ঘনিষ্টজনরা এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। এই হত্যাকান্ডে জড়িত প্রধান অভিযুক্ত হিসেবে নিহত কুদ্দুসের চাচাত ভাই বুলবুলকে আটক করা হয়েছে। এব্যাপারে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হত্যা মামলার প্রস্তুুতি চলছিল বলে ওসি জানান। নিহত কুদ্দুসের লাশ ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

## ঘোড়াঘাট মটর শ্রমিক বহুমুখী সমবায় সমিতির ৫ লাখ টাকা নিয়ে কোষাধ্যক্ষ লা-পাত্তা
দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট মটর শ্রমিক বহুমুখী সমবায় সমিতির ৫ লাখ টাকা নিয়ে কোষাধ্যক্ষ আলতাফ হোসেন গা ঢাকা দিয়েছে। এ ব্যাপারে সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভপতি বেলাল হোসেন বাদী হয়ে ঘোড়াঘাট থানায় আত্মসাতকারী কোষাধ্যক্ষের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়েরী করেছে। জানা গেছে, গত ১৬ মে ঘোড়াঘাট মটর শ্রমিক বহুমুখী সমবায় সমিতি লিঃ এর বার্ষিক সমাবেশ সমিতির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সমিতির হিসাব নিকাশকালে উক্ত সমিতির কোষাধ্যক্ষ আলতাফ হোসেন সোনালী ব্যাংক লিঃ ঘোড়াঘাট শাখার হিসাব নং ৪৭৪৭/৩০ এ জমাকৃত অনুমান ১২ লাখ টাকার মধ্যে ৫ লাখ টাকা এবং সমিতির উত্তোলনকৃত প্রায় ৫৯ হাজার টাকার হিসাব দিতে ব্যর্থ হয়। এতে সমিতির সভাপতি সহ সদস্যদের মধ্যে উত্তেজনাসহ ক্ষোভ প্রকাশ করে। সমিতির হিসাব দিতে না পেরে উক্ত কোষাধ্যক্ষ কাল ক্ষেপন করতে থাকে। এক পর্যায়ে কোষাধ্যক্ষ আলতাফ হোসেন গা ঢাকা দেয়। তার কোন সন্ধান না পেয়ে তার বিরুদ্ধে ঘোড়াঘাট থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়। উক্ত কোষাধ্যক্ষ আলতাফ হোসেন (৬০) ঘোড়াঘাট পৌরসভার উত্তর নয়াপাড়া গ্রামের মৃত খইমুদ্দিনের পুত্র। আত্মসাতকারী কোষাধ্যক্ষ আলতাফ হোসেনের সন্ধানদাতাকে উপযুক্ত পুরুস্কৃত করা হবে বলে সমিতির পক্ষ থেকে ঘোষনা করা হয়েছে।

## নবাবগঞ্জ-ঘোড়াঘাট ৫০ শয্যা হাসপাতালের ভবন নির্মানের টাকা নিয়ে ঠিকাদার লাপাত্তা
দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি: সরকারের স্বাস্থ্য সেবা জনগনের দোরগোড়ায় পৌচ্ছে দেওয়ার জন্য উপজেলা পর্যায়ে ৩১ শয্যার হাসপাতাল কে ৫০শয্যায় উন্নীত করতে নবাবগঞ্জ ও ঘোড়া ঘাট উপজেলায় প্রায় ১০ কোটি টাকা বরাদ্ধে ভবন দুটি নির্মান কাজ শুরু হয়। বেশ জাকজমক আর অনুর্ষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে নির্মাণ ফলক উন্মোচন করা হয়।
এ দিকে সংশ্লিষ্টি কাজের ঠিকাদার প্যাকেজ নং পি-ও৭/এলডিএসিএমএম ইউ এল ও টি /১৪/আইডিএ) কাজটি পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্টান মেসার্স খন্দকার মাইনুল ইসলাম বোয়ালিয়া রাজশাহী।হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ঐ ঠিকাদার ২ উপজেলায় নির্মান কাজ অসমাপ্ত রেখে চলে যায়। এদিকে নির্বাহী প্রকৌশলি এইচ ইডি দিনাজপুর একেএম মাজহারুল হক স্বারক নংএইচইডি/নি/প্রাঃ/দিনাজ-বি:/ঘোড়া-নবাব-টিএইচইসি/১৯০০/২০১০/১২১৬তারিখ ০১২/১২/২০১২ ইং স্বাক্ষরিত নির্মাধীন প্রতিষ্ঠান ঠিকাদার কে ১৩ বার পত্র দেওয়া হলেও জবাব দেননি। যার ফলে ৫০ শয্যা হাসপাতাল নির্মান কাজ অসম্পূন্ন অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এ বিষয়ে, নবাবগঞ্জ স্বাস্থ্য প্রশাসক ডাঃ রেজাউল বারী জানান ওই ঠিকাদারের কার্যাদেশ বাতিল করা হয়েছে। নতুন করে ঠিকাদার নিয়োগের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই