মেইন ম্যেনু

ওসিকে শোকজ

থানায় এএসআইকে থাপড়ালেন যুবলীগ নেতা

নোয়াখালী জেলা যুবলীগ নেতা ফয়েজুল ইসলাম সুমন বেগমগঞ্জ থানায় ঢুকে সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আব্দুর রেজ্জাককে ধাপ্পড় দেয়ার ঘটনায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমানকে শোকজ করা হয়েছে।
একই সঙ্গে উপপরিদর্শক (এসআই) মো. হাসেমকেও শোকজ ও ডিউটি অফিসারের দায়িত্ব থাকা ও ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকেও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এসআই মো. ইয়াছিনকে সাময়িক ক্লোজড করে পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে।
শনিবার দুপুরে জেলার অতিরিক্তি পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনার সময় দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তারা তাৎক্ষণিক কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তাদের কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।
অতিরিক্তি পুলিশ সুপার আরো জানান, ঘটনার পর থেকে যুবলীগ নেতা ফয়েজুল ইসলাম সুমন পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
প্রসঙ্গত, গত ৮ অক্টোবর রাতে বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়নের মাজার গেট এলাকা থেকে রুবেল নামে অপহৃত এক যুবককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন এএসআই আব্দুর রেজ্জাক। খবর পেয়ে যুবলীগ নেতা ফয়েজুল ইসলাম সুমন থানায় গিয়ে উদ্ধারের ঘটনা নিয়ে রেজ্জাকের সঙ্গে বাক-বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন।
এক পর্যায়ে যুবলীগ নেতা সুমন উত্তেজিত হয়ে থানায় উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের সামনেই এএসআই রেজ্জাকের গালে চড় ধাপ্পড় মারেন। এসময় উপস্থিত পুলিশদের গালমন্দ করেন।
সঙ্গে সঙ্গে লাঞ্ছিত পুলিশ কর্মকর্তা বিষয়টি জানানোর জন্য ওসি মোস্তাফিজুর রহমানের কক্ষে যান। এসময় যুবলীগ নেতা সুমন ওসির কক্ষে গিয়ে পুনরায় তাদের ওপর চড়াও হন। পরে ওসি যুবলীগ নেতা সুমনকে পরিদর্শকের (ওসি- তদন্ত) কক্ষে গিয়ে বসতে বললে ওই নেতা থানা থেকে বের হয়ে চলে যান।
পরবর্তীতে এ ঘটনায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে শুক্রবার রাতেই যুবলীগ নেতা সুমনের বিরুদ্ধে এএসআই রেজ্জাক বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন।






মন্তব্য চালু নেই