মেইন ম্যেনু

টেস্টে ফেরার প্রত্যাশায় শাহদাত

বোলিং অ্যাকশন নিয়ে পরীক্ষা দিতে যাবেন আল আমিন হোসেন। সোহাগ গাজীও নিষিদ্ধ। তাই জিম্বাবুয়ে সিরিজে বিকল্প হিসেবে অন্য কারও কথা ভাবতেই হচ্ছে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টকে। সমস্যা কাটাতে তাই ৩২ জনের দলে সুযোগ দেয়া হয়েছে ছয় পেসারকে। তাদের মধ্যে আছেন শাহাদত হোসেন রাজীবও। ফিটনেস ফিরে পেয়ে ক্যাম্পে কোচদের শুভদৃষ্টি নিয়ে এখন টেস্ট দলে ফেরার প্রত্যাশায় তিনি।

৩২ জনের প্রাথমিক দলে মাশরাফি, রুবেল, তাসকিন, শফিউল, রবিউলের সঙ্গে নতুন করে যারা ডাক পেয়েছেন তারা হলেন: শাহাদাত হোসেন রাজীব, আবুল হাসান রাজু, মুকতার আলী ও মোহাম্মদ শহীদ। এর মধ্যে দীর্ঘদিন পর ডাক পেলেন শাহাদাত। সর্বশেষ গত বছর মার্চ মাসে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জাতীয় দলের হয়ে ওয়ানডে ও টেস্টে খেলেছেন তিনি। এরপর পার হয়ে গেছে প্রায় দুই বছর।

তবে রোববার ক্যাম্পে ফিরেই নজর কেড়েছেন বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিকের। তার সম্পর্কে সাবেক জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক বলেন, ‘ভাল করছেন শাহাদত।’ বুধবার অনুশীলন শেষে আশাবাদী মনে হল নারায়ণগঞ্জের এই পেসারকেও। ৩৫ টেস্টে ৭০ উইকেট শিকারী এই বোলার বলেন, ‘প্রাথমিক দলে সুযোগ পাওয়ার পর সবারই আশা থাকে মূল দলে ফেরার। আমিও আশায় আছি। বিশেষ করে ফিটনেস লেভেলটা এখন অনেক ভাল। এর আগে ফিটনেসের জন্যই বাদ পড়েছিলাম। এখন কোচরা আমার ফিটনেসের উন্নতিটা দেখছেন। আশা করি দলে ফিরতে পারব।’

বোলিং কেমন হচ্ছে? জানতে চাইলে বেশ আত্মবিশ্বাসী শোনালো শাহাদতকে, ‘আমি বোলিং কখনওই খারাপ করিনি।’ তবে বাদ পড়ার কারণ সম্পর্কে তার মুখে সরল স্বীকারোক্তি, ‘আমি নিজের ভুলেই হারিয়ে গিয়েছিলাম। ফিটনেস ঠিক রাখার জন্য যা করতে হয় তা করিনি। সব সময় ফিটনেসের কারণেই দল থেকে বাদ পড়েছি। আর ইনজুরির কারণে ও ফিটনেসের অভাবে  বলের গতিও কমে গিয়েছিল। এখন আবারও ফিরে পাচ্ছি নিজেকে।’

ওয়ানডের চেয়ে শাহাদতের টেস্টের রেকর্ডই ভালো। টেস্টে মাশরাফি নেই দীর্ঘ দিন ধরে। আল আমিনকেও পাওয়া যাচ্ছে না। এ কারণে আবারও দলে ফেরার সুযোগ এসে গেল শাহাদাত রাজীবের সামনে। টেস্টে বিকল্প হিসেবে কোচ ও নির্বাচকদের তালিকায় উপরের দিকেই আছেন তিনি। তাই প্রস্তুতি ম্যাচগুলোতে ভাল করার জন্য মুখিয়ে এ পেসার।






মন্তব্য চালু নেই