মেইন ম্যেনু

ক্রেস্টে স্বর্ণ চুরির অনুসন্ধানে নামছে দুদক

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখা বিদেশি বন্ধু ও সংগঠনকে মুক্তিযুদ্ধের সম্মাননা স্মারক হিসেবে দেয়া ক্রেস্টে স্বর্ণ চুরির অনুসন্ধান করবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অবিস্মরণীয় অবদানের জন্য বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়ক, রাজনীতিবিদ, দার্শনিক, শিল্পী-সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী, বিশিষ্ট নাগরিক ও সংগঠনকে সম্মাননার সময় দেয়া ক্রেস্টে যে পরিমাণ স্বর্ণ থাকার কথা ছিল, তা দেয়া হয়নি। ক্রেস্টে রুপার বদলে দেয়া হয় পিতল, তামা ও দস্তামিশ্রিত সংকর ধাতু।

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) পরীক্ষায় এ ফাঁকি ধরা পড়ে।

বিএসটিআইয়ের পরীক্ষায় দেখা গেছে, এক ভরির (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) জায়গায় ক্রেস্টে স্বর্ণ পাওয়া গেছে মাত্র ২ দশমিক ৩৬৩ গ্রাম (সোয়া তিন আনা)। এক ভরির মধ্যে প্রায় ১২ আনাই নেই। আর রুপার বদলে ৩০ ভরি বা ৩৫১ গ্রাম পিতল, তামা ও দস্তামিশ্রিত সংকর ধাতু পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় ক্রেস্ট ক্রয় কমিটির প্রধান মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব গোলাম মোস্তফাকে ওএসডি (বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) করা হয়েছে।

স্বর্ণ চুরি তদন্তে কমিটি তাদের প্রতিবেদনে এ জন্য ১৩ ব্যক্তি ও দুটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে দায়ী করেছে। তাদের মধ্যে আছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাবেক প্রতিমন্ত্রী এ বি তাজুল ইসলাম, যিনি একজন সনদপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা।






মন্তব্য চালু নেই