মেইন ম্যেনু

এবার জুতা পায়ে শহীদ মিনারে ওসি!

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে নোয়াখালীর সূবর্ণচর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে দিবসের প্রথম পহরে রাত ১২টা ১মিনিটে ৩১বার তপোধ্বনির মধ্য দিয়ে শহীদদের স্মরণ করা হয়। এর পর শুরু হয় প্রশাসন ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন।

এ সময় চরজব্বর থানা প্রশাসনের পক্ষে শহীদ বেদীতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম এনামুল কবির। তাবে তিনি তার পায়ে পরিহিত পুলিশের সু (জুতা) পরা অবস্থায়ই শহীদ মিনারে গিয়ে শদ্ধা নিবেদন করেন।

পরে বিষয়টি জানাজানি হলে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। এতে ওই সময় শ্রদ্ধা জানাতে যাওয়া অনেকেই বিষয়টি অনাকাঙ্খিত এবং এ কাজ প্রশাসনের লোক হয়ে করা উচিত হয়নি বলেও মন্তব্য করেন।

এ ব্যাপারে সূবর্ণচর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সুভিমল দাস জানান, রাতে তাড়াহুড়ার মধ্যে আমরা বিষয়টি দেখতে পাইনি। মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে সাবাইকেই শহীদ মিনারে খালি পায়ে উঠতে হয়। ওসি সাহেব জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠে শহীদদের প্রতি অসম্মান করেছেন। এ বিষয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবিহত করা হবে।’

জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. মোজাম্মেল হক মিলন জানান, ‘এ ধরনের ঘটনা শহীদদের প্রতি অশ্রদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধকে অস্বীকার করার সামিল। জেলা মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে আমরা এঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।’

এ বিষয়ে চরজব্বর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম এনামুল কবির জুতা পায়ের বিষয়টি স্বীকার ও দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘ভুলক্রমে এ অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেছে।’

এদিকে প্রথম প্রহরে অন্যান্যের মধ্যে আরও যারা শহীদ বেদীতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেন করেন তারা হলেন- মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মুক্তিযোদ্ধা, উপজেলা প্রশাসন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, প্রেসক্লাব, বেসরকারি সংস্থা ও এনজিওসহ বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠান।






মন্তব্য চালু নেই