মেইন ম্যেনু

একাত্তরের ‘রেডিও রেকর্ড’ উপহার দিল ভারত

বাংলাদেশকে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক ও মহামূল্যবান ‘রেডিও রেকর্ড’ উপহার দিল ভারত। প্রতিবেশী বন্ধু রাষ্ট্র ভারতে সফররত রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের হাতে এই উপহার তুলে দেয় অল ইন্ডিয়া রেডিওর (এআইআর) কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশের পক্ষ থেকে দীর্ঘদিন ধরে এই মূল্যবান রেডিও রেকর্ড পাওয়ার জন্য দেনদরবার করা হচ্ছিল। অবশেষে দেশটির রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির অনুরোধে বাংলাদেশকে তা উপহার হিসেবে দিল এআইআর।

মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী ও মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ দুই দেশের শীর্ষ নেতাদের ভাষণ, বক্তব্য, সাক্ষাৎকার নিয়ে এসব রেকর্ড সিডি আকারে সংরক্ষণ করে এআইআর। রেকর্ডের অনেক বিষয় বাংলাদেশে সংরক্ষিত নেই। যা আছে, তার আবার মূল রেকর্ড নেই। ফলে মুক্তিযুদ্ধের গুরুত্বপূর্ণ এই ডকুমেন্ট মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে আরো সমৃদ্ধ করবে- এমনটি আশা করে বাংলাদেশ।

ঐতিহাসিক এই রেকর্ডে আরো রয়েছে ১৯৭২ সালের জানুয়ারিতে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ। এ ছাড়া ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনীর আত্মসমর্পণ নিয়ে দেওয়া বক্তব্য, সাক্ষাৎকারও এতে রয়েছে।

দুটি সিডি আকারে ঐতিহাসিক সেই রেকর্ড বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতিকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। একটি সিডির শিরোনাম ‘স্ট্রাগল অব অা নেশন’। ১৯৭১ সালের মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত আকাশবাণী কলকাতায় প্রচারিত গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার রেকর্ডগুলো এতে স্থান পেয়েছে। ‘সংবাদ বিচিত্রা’ শীর্ষক নিউজ-রিলও এতে স্থান পেয়েছে। আকাশবাণীর প্রচারিত সংবাদ বিচিত্রা মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রেরণার একটি উৎস ছিল।

দ্বিতীয় সিডির শিরোনাম ‘লিবারেশন অব বাংলাদেশ’। আকাশবাণী দিল্লি থেকে প্রচারিত রেকর্ডগুলো এতে স্থান পেয়েছে। ১৬ ডিসেম্বর ঢাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর আত্মসমর্পণ, বঙ্গবন্ধু ও ইন্দিরা গান্ধীর ভাষণ, তাদের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা, ভারতের লোকসভার বিবৃতি এবং বাংলাদেশে ঘটে যাওয়ার নানা ঘটনা এই সিডিতে স্থান পেয়েছে।

বাংলাদেশ বেতার সিডি দুটি পেতে আগ্রহ প্রকাশ করায় ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি তা বাংলাদেশকে দিতে অনুরোধ করেন। সরকারিভাবে সিডি দুটি সংরক্ষণ করবে বাংলাদেশ।

মুক্তিযুদ্ধের সময় আকাশবাণী কলকাতার ভূমিকা ছিল বাংলাদেশের মুখপত্রের মতো। ফলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ রেকর্ড সেখানে জমা হয়।

তথ্যসূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইন।






মন্তব্য চালু নেই