মেইন ম্যেনু

আমাকে নয় ফখরুলকে উকিল নোটিশ পাঠান : হাছান মাহমুদ

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পাঠানো উকিল নোটিশ সম্পর্কে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘আমাকে উকিল নোটিশ না পাঠিয়ে আপনার দলের মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ অন্য নেতাদের পাঠান।’

তিনি বলেন, ‘কেননা, প্রধানমন্ত্রী সুইস ব্যাংক থেকে টাকা আনার ঘোষণা দেয়ায় বিএনপির নেতারা যেভাবে অস্বস্তি প্রকাশ করেছেন তাতে তারেকের উচিৎ তাদেরকে উকিল নোটিশ পাঠানো।’

সোমবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। সভা আয়োজন করে বাংলাদেশ নাগরিক সেবা ও কনজ্যুমার্স রাইটস সোসাইটি।

তারেক রহমানের পাঠানো উকিল নোটিশ পাননি বলেও দাবি করেন আওয়ামী লীগের এ নেতা।

তিনি বলেন, ‘তিনি (তারেক রহমান) আমার ঠিকানায় উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন। তবে আমি তা এখনও পাইনি। পাওয়ার পরে সিদ্ধান্ত নেবো।’

প্রসঙ্গত, সুইস ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট আছে মর্মে বক্তব্য দেয়ায় আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

গত ৩ জুলাই সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার পক্ষে ডাকযোগে এ নোটিশটি পাঠান।

লিগ্যাল নোটিশে ড. হাছান মাহমুদকে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে তার বক্তব্যের সত্যতা প্রমাণ করতে বলা হয়। না হয় জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে হবে বলে উল্লেখ করা হয়। অন্যথায় তার বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘শেখ হাসিনা মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিয়েছেন। মানব উন্নয়ন সূচকে সার্কভুক্ত দেশগুলোর শীর্ষে অবস্থান করছে বাংলাদেশ। ভারতের মানুষের গড় আয়ুর চেয়েও বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বেশি।’

তিনি বলেন, ‘যারা খাদ্যে ভেজাল মেশায় সরকার তাদের বিরুদ্ধে কঠোর হচ্ছে। খাবারের পাশাপাশি রাজনীতিকে বিষমুক্ত করতে হবে। খাদ্য বিষমুক্ত করার জন্য রাজনীতিকে বিএনপি-জামায়াতের বিষমুক্ত রাখতে হবে।’

‘এ জন্য মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য আহ্বান’ জানান সাবেক এ মন্ত্রী।

বাংলাদেশ নাগরিক সেবার উপদেষ্টা চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা সতীশ চন্দ্র রায়, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, এম এ করিম ও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা।






মন্তব্য চালু নেই