মেইন ম্যেনু

৫ জানুয়ারি পাঁয়তারা করলে কঠোর হস্তে দমন

আগামী ৫ জানুয়ারি সরকারের বর্ষপূর্তিতে বিএনপি-জামায়াত কোনো অরাজকতা সৃষ্টির পাঁয়তারা করলে তা কঠোর হস্তে দমন করা হবে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেন, ‘আর কোনো অরাজকতা সহ্য করা হবে না। ২০ দলীয় জোট গণতন্ত্র বিরোধী কোনো কর্মসূচি দিলে প্রশাসনিক ও রাজনৈতিকভাবে তা মোকাবেলা করা হবে। আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলের পক্ষ থেকে আগামী ৫ জানুয়ারি দেশে গণতন্ত্র রক্ষা দিবস পালন করা হবে।’

রোববার দুপুরে সিরাজগঞ্জে আইনশৃঙ্খলা ও জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগের এই প্রেসিডিয়াম সদস্য।

আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা ও গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা রক্ষায় ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অবধারিত ছিল। এ নির্বাচন না হলে দেশে সামরিক শাসন জারি হতো। গণতন্ত্র, জাতীয় সংসদ ও উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হতো।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশ-বিদেশের সব ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন। নির্বাচন পরবর্তী গঠিত সরকারের সঙ্গে চীন, জাপান ও ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ কাজ করছে।’

১৪ দলের এই মুখপাত্র বলেন, ‘বর্তমান সরকার জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আগামী ৫ জানুয়ারি সরকারের বর্ষপূর্তিতে বিএনপি যাতে নতুন করে কোনো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য প্রশাসনকে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের দমনে কোনো ধরনের শৈথিল্য সহ্য করা হবে না।’

সভায় উপস্থিত কর্মকর্তাদের স্মরণ করিয়ে দিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘নির্বাচন প্রতিহত করার নামে বিএনপি তার যুদ্ধাপরাধী মিত্র জামায়াতকে নিয়ে যে অরাজকতা সৃষ্টি করেছিল, তা মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী দেশবাসীর সহযোগিতায় ব্যর্থ করে দেয়া হয়েছে। সে সময় আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামায়াত শুধু সাধারণ মানুষকেই হত্যা করেনি, তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ও নির্বাচনী কর্মকর্তাদেরও হত্যা করে কলঙ্কজনক অধ্যায় সৃষ্টি করেছিল। তাদের হত্যা, অগ্নিসংযোগসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড দেশবাসীকে নতুন করে ১৯৭১ সালের পাক হানাদার বাহিনীর নৃশংসতার কথা মনে করিয়ে দিয়েছিল।’

সিরাজগঞ্জ কালেক্টরেট ভবনের শহীদ শামসুদ্দিন সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক বিল্লাল হোসেন।

এ সময় সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসক আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, সিরাজগঞ্জ-৩ (রায়গঞ্জ-তাড়াশ) আসনের এমপি গাজী ম. ম. আমজাদ হোসেন মিলন, সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি সেলিনা বেগম স্বপ্না, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কেএম হোসেন আলী হাসান, সিরাজগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সৈয়দ আব্দুর রউফ মুক্তাসহ সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে বিকেলে মোহাম্মদ নাসিম তার নির্বাচনী এলাকা কাজীপুর উপজেলা পরিষদ মাঠে অনুষ্ঠিত শহীদ এম মনসুর আলী স্মৃতি ভলিবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা উপভোগ করেন এবং বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।






মন্তব্য চালু নেই