মেইন ম্যেনু

২০ দলীয় জোট ছোট হচ্ছে

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটে অস্থিরতা চলছেই। ন্যাপ ভাসানী এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) পর এবার জোট ছেড়ে যাচ্ছে ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি এবং বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টি।
এনডিপির মহাসচিব আলমগীর মজুমদার এবং ইসলামিক পার্টির মহাসচিব এম এ রশিদ প্রধানের নেতৃত্বে নেতা-কর্মীরা যোগ দিচ্ছেন জোট থেকে বহিষ্কৃত নেতা শওকত হোসেন নিলুর নতুন জোটে। শনিবার দুপুরে রাজধানীর ঈশা খাঁ হোটেলে আনুষ্ঠানিকভাবে দল দুটির জোট ছাড়ার ঘোষণা এবং নতুন জোটের আত্মপ্রকাশ ঘটতে পারে। বিশ্বস্ত সূত্র থেকে বিষয়টি জানা গেছে।

জোট ছাড়ার কারণ হিসেবে জোটের ‘অবমূল্যায়ন’ এবং দলের চেয়ারম্যানের ‘স্বেচ্ছাচারিতা’কে দায়ী করেছেন এনডিপির মহাসচিব আলমগীর মজুমদার। রাইজিংবিডিকে তিনি বলেন, জোটে তেমন মূল্যায়ন হয়না। তাছাড়া দলের চেয়ারম্যান খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা সবসময় অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় দল পরিচালনা করছেন। কোনো সিদ্ধান্তে প্রেসিডিয়ামের ১১ জন সদস্যের মধ্যে ৮ জন বিরোধিতা করলেও তিনি তা আমলে নেন না। বিষয়টি বার বার তাকে বলা হলেও তিনি এ বিষয়ে গুরুত্ব দেননি।

মজুমদার বলেন, ‘তিনি দলীয় কর্মকাণ্ড বাদ দিয়ে কেবলমাত্র জোটের কর্মকাণ্ডে যোগ দেন। তাও দায়সারা গোছের। কিছু লোক সঙ্গে করে মিছিল নিয়ে চলে যান, নিজের চেহারা দেখান। আপনি দেশের গণতন্ত্রের কথা বলবেন আর নিজের দলের মধ্যে গণতন্ত্র রাখবেন না। তা কি করে হয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘জোটের চেয়ারম্যান নিজে টাকা খরচ করেন বলে যা খুশি তাই করবেন। তা হলেও তো দল হতে পারে না। এটি হলে সালমান এফ রহমান অনেক বড় দল করতে পারতেন, কিন্তু পারেনি। এ ব্যাপারে অনেক সমালোচনা করলেও তিনি ঠিক হননি। তাই এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছি।’

গত ২৪ আগস্ট জোটের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদের ঘোষণা দেন এনপিপি একাংশের চেয়ারম্যান শেখ শওকত হোসেন নিলু। যদিও এর আগে শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে দল ও জোট থেকে বহিষ্কৃত হন তিনি। তবে দলের অপর অংশ নিয়ে যথারীতি জোটে রয়েছেন দলটির বর্তমান চেয়ারম্যান ও সাবেক মহাসচিব ডা. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ।
এর আগে ন্যাপ ভাসানীর চেয়ারম্যান (একাংশ) শেখ আনোয়ারুল হক জোট ছেড়ে যান। যদিও এই দলটির একাংশ এখনো ২০ দলীয় জোটে প্রতিনিধিত্ব করছে।
জোটের একজন শীর্ষ নেতা বলেন, দল দুটির একাংশের নেতাদের জোট থেকে বের হতে প্রেরণা যুগিয়েছে বহিষ্কৃত নেতা শওকত হোসেন নিলু। নিলু নিজের স্বার্থ আর নির্দিষ্ট এজেন্ডা বাস্তবায়নে জোটের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টিতে কাজ করছে।






মন্তব্য চালু নেই