মেইন ম্যেনু

হাসিনা সরকারের পতনই ছিল জঙ্গিদের লক্ষ্য

পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা- ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এনআইএ)। সম্প্রতি এই সংস্থাটির বরাত দিয়ে ভারতীয় একটি পত্রিকা দাবি করেছে, ক্ষমতাসিন হাসিনা সরকারকে উৎখাত করতেই পরিকল্পনা করা হচ্ছিল বর্ধমানের ওই বাসাটি থেকে যেখানে গত ২ অক্টোবর বিস্ফোরণে নিহত হন দুজন। এ সমস্ত পরিকল্পনাই করছিল জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি)।

ভারতের গোয়েন্দারা বলছেন, বর্ধমানে তৈরি হওয়ার পর এই বিস্ফোরক সম্ভবত অসমের ধুবড়ি হয়ে সীমান্তপারে পৌঁছাত এবং তারপর শেখ হাসিনা সরকারকে উৎখাতের জন্য সময়মতো কাজে লাগানো হতো।

বিস্ফোরণের ঘটনার পর তদন্ত শুরু করে ভারতীয় গোয়েন্দারা এখনও যতদূর এগিয়েছেন তাতে তারা অন্তত এ বিষয়টিতে নিশ্চিত হয়েছেন যে, ওইসব বিস্ফোরক বাংলাদেশে সন্ত্রাসী হামলার চালানোর জন্যই তৈরি করা হচ্ছিল এবং তার মূল লক্ষ্য ছিল হাসিনা সরকারকে বিপদে ফেলা।

গত ২ অক্টোবর বর্ধমানের একটি বাসায় বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণে দুজন নিহত হন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ দুই নারীকে আটক করে।

ওই ঘটনার পর ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি প্রতিবেদন দেয় এনআইএ। ভারতীয় দৈনিক বর্তমান জানায়, ওই প্রতিবেদনে এনআইএ বলেছে, জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদার শাখা আল জিহাদের সঙ্গে সম্পর্ক থাকা জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্যরাই এ জঙ্গি হামলায় জড়িত। পশ্চিমবঙ্গের শাসক দলের এক স্থানীয় নেতা এ জঙ্গিদের থাকার জন্য বাড়িভাড়ার ব্যবস্থা করেছিলেন বলেও ওই গোয়েন্দা রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়।

ওইসময় এনআইএ অভিযোগ করেছিল, তাদের তদন্তে রাজ্য পুলিশ অসহযোগিতা করেছে। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা যাওয়ার আগেই পুলিশ তথ্য প্রমাণ নষ্ট করে দেয়।






মন্তব্য চালু নেই