মেইন ম্যেনু

সাবধান; ফুচকা-মোমোয় পাওয়া গেলো মলমূত্র-কণা

শান্ত বিকেলের কোন একটা সময় রাস্তায় ধারে দাঁড়িয়ে মজা করে মুখে তুলে যাচ্ছেন। তেঁতুল জলের টক আর হালকা ঝালে খুব মজা করে খেয়েই চলেছেন। মনে মনে কম ভাবনা নিয়ে খাওয়া শুরু করলেও খেয়ে ফেললেন অনেকগুলোই। কিন্তু একবারও কি ভেবেছেন আপনি যে এই ফুচকা খাচ্ছেন এতে কি আছে?

আর যারা মোমো বলতে অজ্ঞান, অফিস শেষে করে প্রায় নিয়ম করেই এক প্লেট মোমো-না খেয়ে ঘরে ফেরেন না। তারাও কি জানেন মোমোর সঙ্গে আপনার প্লেটে কি চালান করছেন?

শুনলে একদম এখনি টাসকি খেয়ে যাবেন। কিন্তু এটাই সত্য ষোলআনা। এই ফুচকা এবং মোমোয় পাওয়া গেছে মলমূত্র-কণা। তাও আবার কোন একটা দোকানে নয়, রাজধানীর রাস্তার ধারে বেশ কয়েকটি দোকানে খাবারের নমুনা পরীক্ষা করে মলের অস্তিস্ব পেয়েছেন গবেষকরা।

এই স্ট্রিট ফুড কতটা স্বাস্থ্যসম্মত তা নিয়ে বিতর্ক চলছে অনেক দিন হলোই। সম্প্রতি হোটেল ম্যানেজমেন্ট, ক্যাটারিং এ্যান্ড ও পুসা সম্মিলিত ভাবে ভারতের পশ্চিম ও সেন্ট্রাল দিল্লির রাস্তার খাবারের নমুনা সংগ্রহ করে সমীক্ষা চালায় আর তাতে শুধু মলকণাই নয়, এই সমস্ত জাংকফুডে ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়ার অস্তিস্ব মিলেছে। খাবারে এই ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়া থাকায় পেটের সংক্রমন হতে পারে।

এদিকে চমকে দেয়ার মত এই রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই ভারতের দিল্লির ফুড সেফটি কমিশনারকে চিঠি দেয়া হয়েছে। তাতে এই ধরনের স্ট্রিটফুডের মান ফের পরীক্ষা করে দেখার জন্য বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য- এই রিপোর্টে আমাদের বাংলাদেশে মানুষের বটে খুব এটা চমকে ওঠার কারণ নেই তবে এই ফুচকা ও মোমো খাওয়ার সময় সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।






মন্তব্য চালু নেই