মেইন ম্যেনু

সাকিব-তামিমের দাবি পূরণ বিসিবির

আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে বসছে ২০১৫ বিশ্বকাপের আসর। কন্ডিশন, আবহাওয়া ও উইকেটের চরিত্র বিবেচনায় বাংলাদেশ থেকে সম্পূন্ন ব্যতিক্রম তাসমান সাগর পাড়ের ওই দেশ দুটি। এই বিষয়টি মাথায় রেখেই বাউন্সি উইকেটে অভ্যস্থ কিংবা সহনীয় হতে দীর্ঘদিন থেকে গতিময় উইকেটের দাবি করে আসছিল সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালরা। অবশেষে তা আলোর মুখ দেখার দ্বারপ্রান্তে। প্রিমিয়ার লিগের সুপার সিক্সের লড়াই থেকেই বাউন্সি উইকেটে খেলার সুযোগ পাবে টাইগার ক্রিকেটাররা। শুক্রবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন।

আগামী বুধবার থেকে শুরু হবে ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটর লিগের সুপার সিক্সের রোমাঞ্চ। সেরা ছয় দলের লড়াইয়ের প্রথম দিন মুখোমুখি হবে ঢাকাই ক্রিকেটের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহামেডান ও আবাহনী। ২৪ তারিখের জমজমাট এই দ্বৈরথের পর বাকি দুটি খেলা অনুষ্ঠিত হবে ২৭ ও ৩০ ডিসেম্বর। যেখানে প্রথমবার বাংলাদেশের ক্রিকেটে বাউন্সি উইকেট উপহার দেয়ার প্রতিজ্ঞা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিষয়টি নিয়ে নিজার উদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড ২০১৫ বিশ্বকাপের পূর্ণ প্রস্তুতির জন্য আমরা প্রিমিয়ার লিগের বাকি ম্যাচগুলোতে বাউন্সি উইকেট তৈরির কথা আগেই চিন্তা করেছিলাম। এখন আমাদের পক্ষে যতোটা সম্ভব প্রিমিয়ার লিগের অবশিষ্ট ম্যাচগুলোয় বাউন্সি উইকেট তৈরি করবো। বিশ্বকাপের চিন্তা করেই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।’

আসন্ন বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্য জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা দীর্ঘদিন ধরেই বাউন্সি উইকেটের দাবি করে আসছিল। এ বিষয়ে শুক্রবার জাতীয় দলের তরুণ ওপেনার এনামুল হক বিজয় বলেন,‘বিশ্বকাপের আগে বাউন্সি উইকেটে অনুশীলন করা খুব দরকার। অবশ্য এটা বিসিবির বিষয়। তবে আমার ধারনা বিসিবি এটা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করছে। সেজন্য প্রিমিয়ার লিগের অবশিষ্ট ম্যাচগুলোয় গতি বান্ধব বাউন্সি উইকেট হলে খুব ভালো হতো। কিন্তু যদি সেটা সম্ভবপর না হয় তাহলে অন্তত বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতির জন্য বাউন্সি উইকেট প্রয়োজন।’ বিষয়টি নিয়ে একই মন্তব্য করেন সৌম্য সরকারও। তার ভাষ্য, ‘বিশ্বকাপের আগে বাউন্সি উইকেটে খেলার সুযোগ পেলে খুব ভালো হতো।’ শুধু কী, এনামুল বা সৌম্য- অভিন্ন কণ্ঠে গলা মেলালেন জাতীয় দলের তরুণ অলরাউন্ডার সাব্বির রহমানও। তিনি বললেন, ‘আমাদের অবশ্যই বিশ্বকাপের আগে বাউন্সি উইকেটে খেলা উচিত। হঠাৎ করেই বাউন্সি উইকেটে খেলা কঠিন হবে। আমি চাই বিশ্বকাপের আগে প্রিমিয়ার লিগের বাকি ম্যাচগুলোয় যেন বাউন্সি উইকেটে খেলানো হয়।’

বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির ম্যানেজার আবদুল বাতেন এ বিষয়ে বলেন,‘অফ সিজনে প্রিমিয়ার লিগের জন্য প্রতিটি ভেন্যুতে তিনটি করে বাউন্সি উইকেট তৈরি করা হয়েছে। উইকেটের ওপরের স্তরে পরিবর্তন এনে ঘাসও রাখা হয়েছে। এখন দরকার এই সব পিচের পর্যাপ্ত পরিচর্যা। আশা করছি সুপার লিগের সবগুলো উইকেটে বাউন্স পাওয়া যাবে। তার জন্য মাঠকর্মীরা আগেই কাজ শুরু করে দিয়েছেন।’ তিনি আরো জানান, ‘মাঠে ৩টি সেন্টার উইকেট এবং ১০টি সাইড উইকেটের সবগুলোকেই বাউন্সি পিচে পরিণত করার কাজ চলছে। এই পিচগুলোর বেসমেন্টে ইটের বদলে পাথর থাকায় বল যথেষ্ঠ বাউন্স পাবে। আগামী ১২ জানুয়ারি থেকে বিশ্বকাপের অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হবে, তার আগেই আমরা এসব পিচকে বাউন্সি পিচে পরিণত করতে পারবো বলে আশা করছি।’






মন্তব্য চালু নেই