মেইন ম্যেনু

শোয়ার ঘর ভারতে, রান্নাঘর মিয়ানমারে!

ভারতের আসাম রাজ্যের মোন জেলায় লোঙ্গা নামে একটি গ্রাম রয়েছে। যে গ্রামের মানুষদের শোয়ার ঘর ভারতে কিন্তু রান্নাঘর মিয়ানমারে। অর্থাৎ ভারতে ঘুম থেকে উঠে তাদের খাওয়া-দাওয়া সারতে যেতে হয় মিয়ানমারে। এমন অদ্ভুত পরিস্থিতিতেই কাটছে এই গ্রামের মানুষদের জীবন।

এই গ্রামের ঐতিহ্যবাহী বৃহৎ বাড়িগুলো তৈরি হয়েছে কাঠ এবং খড় দিয়ে। মিয়ানমার সীমান্তে অবস্থিত মোন শহর থেকে ৪২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত রয়েছে। ভারত ও মিয়ানমারের সীমান্ত এই গ্রামের মধ্যে দিয়ে যায়। গ্রামের কয়েকটি বাড়ি আংশিকভাবে রয়েছে ভারতে আর মিয়ানমারে। বাসস্থান একটি দেশে, কাজ করতে হয় আরেকটি দেশে।

অতঃপর সেখানে বসবাসকারী কোনওয়াক উপজাতিদের উভয় দেশের নাগরিকত্ব আছে। আন্তর্জাতিক সীমান্ত কোনওয়াক উপজাতিদের প্রধান অনগের বাড়ির মধ্যে দিয়ে গেছে। কোনওয়াকরা মস্তকশিকারী রূপে পরিচিত। কারণ তারা যুদ্ধের পর বিজয়নিদর্শনস্বরূপ শত্রুর মস্তক কেটে ফেলে।

গ্রাম বিভক্ত থাকলেও এখানের মানুষেরা ঐক্যবদ্ধ। সীমানা এবং নাগরিকত্ব হলো মানুষের উদ্ভাবন। সীমান্তহীন এই গ্রাম হলো বিশ্বের কাছে একটি উদাহরণ। বাম দিকে রয়েছে ভারত এবং ডান দিকে মিয়ানমার।






মন্তব্য চালু নেই