মেইন ম্যেনু

শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র, সামনে ভয়াবহ সময় : শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি ও আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমান বলেছেন, ‘বাংলাদেশ দিন দিন মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে। যার নেতৃত্বে এটা হচ্ছে সেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র চলছে। বিদেশ থেকে আসা কোটি কোটি টাকায় এ দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করার পাঁয়তারা চলছে। ইতোমধ্যে সিলেটের ঘটনা ঘটেছে, এর আগেও অনেক ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু এখানেই শেষ নয়। সামনে আরও অনেক খারাপ সময় আসছে। ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হবে। তাই আমাদের এখন থেকেই প্রস্তুত থাকতে হবে।’

মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) বিকালে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সম্প্রতি সিলেটে জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মরণে দোয়া ও র‌্যাবের আহত গোয়েন্দা প্রধানের সুস্থতা কামনা করে আয়োজিত দোয়া মাহফিলের বক্তৃতায় শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

শামীম ওসমান সিলেটে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিহত সদস্যদের নামে সড়কের নামকরণের ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, ‘আমি রাজনীতি করি এবং সেটা বুঝে করি। আমি সারা বিশ্বের রাজনীতির খবর নিয়েই রাজনীতি করি। সামনে খারাপ সময় আসছে। যেটা কল্পনা করার মতো না সে ধরনের খারাপ সময়ই আসছে সামনে। দেশে ও বিদেশে বসে সে পরিকল্পনা হচ্ছে। এর বেশি আমি কিছু বলবো না। ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে দেশকে এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে। অনেক কিছুই মাইকে বলা যাচ্ছে না।’

এ সংসদ সদস্য আরও বলেন, ‘গুলশানে হলি অর্টিজানে হামলার আগেই আমি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ বিভিন্ন দফতরে বলেছিলাম কিছুটা একটা ঘটতে যাচ্ছে। কিন্তু তাৎক্ষণিক তারা বিষয়টি আমলে নেয়নি। একাত্তরে পরাজিত শক্তি এখন কাজ করছে ‘হিট অ্যান্ড রান’ পদ্ধতিতে। এক জায়গায় অবস্থান করে ঘটনা ঘটিয়ে দ্রুত সেখান থেকে চলে যাবে। নারায়ণগঞ্জেও ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ও ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের আশেপাশে এ ধরনের ঘাঁটি আছে, সে ব্যাপারে খোঁজ খবর নিতে হবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে।’

তিনি নারায়ণগঞ্জের প্রগতিশীল সবাইকে একজোট হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি তাদের মধ্যে ঐক্য কম। আর পরাজিত শক্তিদের ঐক্য বেশি। তারা শক্তিশালী, তাই আমাদের এখন থেকেই প্রস্তুত থাকতে হবে। তারা ছোবল দেওয়ার চেষ্টা করবে। তাই সবাইকে সজাগ থাকতে হবে, প্রতিহত করতে হবে।’

শামীম ওসমানের আয়োজনে ওই দোয়া মহফিলে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া, পুলিশ সুপার মঈনুল হক, র‌্যাব-১১ এর কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল কামরুল হাসান, জেলা ইমাম পরিষদের সভাপতি মনির হোসেন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।






মন্তব্য চালু নেই